পেঁয়াজসহ ১৪টি পণ্যের উৎপাদন খরচ চূড়ান্ত

অর্থনীতি

স্বদেশবাণী ডেস্ক: বাংলাদেশের কৃষকরা উৎপাদন করেন এমন ১৪টি কৃষিপণ্যের গড় উৎপাদন খরচ চূড়ান্ত করেছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর। বহুল প্রচলিত কৃষিপণ্য ধান ও আলুর বাইরে এসব পণ্যের উৎপাদন খরচ নির্ধারণে এবারই প্রথম উদ্যোগ নেয়া হলো।

কৃষকরা যাতে তাদের উৎপাদিত পণ্য যৌক্তিক মূল্যে বিক্রি করে লাভবান হতে পারেন এবং একই সাথে পাইকারি, ফড়িয়া ও খুচরা ব্যবসায়ীরাও যেন যৌক্তিক মূল্যে পণ্য বিপণন করেন, সে দিকটি লক্ষ্য করেই এটা করা হয়েছে।

কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ বিবিসি বাংলাকে বলেছেন যে, ‘দেশের প্রচলিত কৃষিপণ্য বিপণন আইন অনুযায়ী পণ্যের উৎপাদন খরচ নির্ধারণের সুযোগ আছে। কৃষক, সরকার ও ভোক্তাদের পণ্য সম্পর্কে আগাম ধারণা দেয়ার পাশাপাশি, যে কোন সংকট তৈরি হলে সরকার যাতে ব্যবস্থা নিতে পারে, সেজন্যই সবকিছু বিশ্লেষণ করে এসব পণ্যের উৎপাদন খরচ চূড়ান্ত করা হয়েছে।’

এই কৃষিপণ্যগুলো হলো- পেঁয়াজ, রসুন, সরিষা, মসুর ডাল, ফুলকপি, বাঁধাকপি, শসা, টমেটো, কাঁচা পেঁপে, ঢেঁড়স, শীম, বেগুন, কাঁচামরিচ এবং লাউ।

আগে থেকেই কৃষি বিপণন অধিদপ্তর চালের উৎপাদন খরচ নির্ধারণ করে আসছে, আর গত বছর থেকে চালু হয়েছে আলুর উৎপাদন খরচ। এবার সেই তালিকায় যোগ হলো নতুন এই ১৪টি কৃষিপণ্য।

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ জানান, জমিতে থাকা অবস্থায় একটি ফসলের প্রতি কেজি উৎপাদনে কত খরচ হচ্ছে, তার গড় করে একটি হিসাব তৈরি করা হয়। এতে জমির ভ্যালু, কৃষি উপকরণ- যেমন সার, বীজ, কীটনাশক, চাষের খরচ, শ্রম খরচ, ঋণ থাকলে তার সুদ- এমন সংশ্লিষ্ট সব কিছু ধরে উৎপাদন খরচ ঠিক করা হয়েছে।

ওই খরচের নিচে দাম পেলে কৃষকের লোকসান হবে, আর বেশি হলে লাভবান হবে। ফলে এর উপর ভিত্তি করে সরকার পণ্যগুলোর একটি ন্যূনতম দাম ঠিক করতে পারে, যা কৃষককে সুরক্ষা দেবে বলে জানান তিনি।

চলতি বছরে পেঁয়াজের প্রতি কেজিতে উৎপাদন খরচ ১৯.২৪ টাকা, রসুনের ৩০.৮৭ টাকা, মরিচের ১৯ টাকা, সরিষা ৩৩.৮৪ টাকা এবং মসুর ডালের উৎপাদর খরচ ৪০.৩২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। বাকীগুলোর উৎপাদন খরচ আগামী কয়েকদিনের মধ্যে প্রকাশ করা হবে বলে জানান কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের এই কর্মকর্তা।

এক বছর কোন সবজির ভালো দাম পেলে পরের বছর কৃষকরা সেই ফসল বেশি আবাদ করেন, ফলে পরের বছর আবার তার দাম পড়ে যায়। কৃষিপণ্য উৎপাদন ও বিপণনে এটি অন্যতম একটি সমস্যা। যা নিরসনে উৎপাদন খরচ নির্ধারণের বিষয়টি ভূমিকা রেখেছে বলে জানান কৃষি কর্মকর্তারা।

সব মিলিয়ে সুবিধা হবে ভোক্তার, কারণ উৎপাদন খরচ থেকে শুরু করে সব পর্যায়ের দাম সম্পর্কেই তার ধারণা থাকবে।
সেক্ষেত্রে সে প্রতারিত হতে পারবে না।

এদিকে কৃষিপণ্যের বাজার বিপণন বিশেষজ্ঞ ড. মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেছেন, উৎপাদন খরচ নির্ধারণ একটা ভালো উদ্যোগ, কিন্তু সরকার যদি নিজে পণ্য না কেনে তাহলে এই চেষ্টা বাজারে খুব বেশি ভূমিকা রাখবে না।
সূত্র : বিবিসি বাংলা

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *