বাঘায় তিনজনের বিরুদ্ধে মারপিট করে টাকা-মোবাইল কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ

সারাদেশ

 বাঘা প্রতিনিধি : বাঘায় মারপিট করে টাকা ও মোবাইল কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অন্তর আলী (১৬) নামের এক যুবকের মা বুলবুলি বেগম বাদি হয়ে তিন জনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। রোববার (২৮মার্চ) সকাল ১১টায় বাঘা বাজার এলাকার সড়ক সংলগ্ন মাজার গেইটের সামনে এই ঘটনা ঘটেছে।

আগের দিন শনিবার রাতে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে উপজেলার চন্ডিপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ডিজিটাল কনসার্ট অনুষ্ঠানে অভিযুক্তদের মারপিট করা হয়। যার জের ধরে তারা পাল্টা প্রতিশোধ নিতে ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানা গেছে।

অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, রোববার সকাল ১১ টায় গরু বিক্রি করা ৯৫ হাজার টাকা নিয়ে বাড়ি থেকে এজেন্ট ব্যাংক এশিয়া,নারায়নপুর শাখায় যাচ্ছিল অন্তর আলী। তার সাথে মোটর সাইকেলে ছিল দুই বন্ধু তামিম আলী ও জিসাম আলী। ঘটনাস্থল বাঘা বাজার সংলগ্ন মাজার গেটের সামনে অন্তরের মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে তিনজন। এরা হলো মিলিকবাঘা গ্রামের রবি ভান্ডারীর ছেলে মোহাম্মাদ রাব্বি (২০) রফিকুলের ছেলে নয়ন আলী (২০) ও চন্ডিপুর ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে সোহেল রানা (২৮)। তারা লোহার রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে,  কুপিয়ে ও মারপিট করে অন্তরকে জখম করে। পরে মোটরসাইকেলের হ্যান্ডেলে রাখা ৯৫ হাজার টাকার ব্যাগসহ ২২ হাজার টাকা মূল্যের দু’টি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করান।

মেলা ও ডিজিটাল কনসার্ট আয়োজক কমিটির সভাপতি ও বাজুবাঘা ইউনিয়ন আওয়ামলীগের সভাপতি ফজলুর রহমান জানান,  বাঘা সদরের কিছু ছেলেরা নেশাগ্রস্থ অবস্থায় নারিদের সংরক্ষিত গ্যালারিতে প্রবেশের চেষ্টা করে। এ সময় শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত অন্তরসহ তার সঙীরা তাদের বাঁধা দেয়। এর পরেও তারা  সেখানে শক্তি প্রয়োগ করে প্রবেশ করতে যায়। তাদের অসদাচরণে ক্ষিপ্ত হয়ে কমিটির লোকজন ধাক্কা ও চড় থাপ্পড় দিয়ে সেখান থেকে সরিয়ে দিয়েছে। এর জের ধরে পরের দিন তারা ঘটনা ঘটিয়েছে।

বাঘা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল বারী জানান, উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামের মানিক আলীর স্ত্রী বুলবুলি বেগম(অন্তরের মা) বাদি হয়ে ৩জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে।  তদন্ত পুর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।  ##

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *