স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় ছুটির এক বছর

শিক্ষা

স্বদেশবাণী ডেস্ক: কোভিড-১৯ মহামারি পরিস্থিতিতে দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটির এক বছর পূর্ণ হতে চলেছে আজ। ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে দেশে সব  স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রয়েছে।  সরকারের সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, চলতি মাসের ২৯ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে গত বছরের ৮ মার্চ।  এর ১০ দিন পর প্রথম মৃত্যু হয় করোনায়।  তার আগের দিন থেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়।  কয়েক দফায় ছুটি বাড়ানো হয়।

আগামী ৩০ মার্চ থেকে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা থাকলেও সম্প্রতি সংক্রমণ বেড়ে গেছে। গত দুদিনে ২৬ জন করে মারা গেছেন করোনায়। সংক্রমণও রোজ হাজারের ঘরে।  এমতাবস্থায় স্কুল ছুটির বাড়ানো হতে পারে বলে আভাস দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালিক।

এক বছর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার চরম ক্ষতি হয়েছে। প্রায় চার কোটি শিক্ষার্থীর পড়াশোনা বিঘ্নিত হয়েছে গত এক বছর। সংক্রমণ পরিস্থিতিতে গত বছরের প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা এবং জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে।

গত বছরের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষাও হয়নি। পরীক্ষা না নিয়েই এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীদের মূল্যায়নের ফল গত জানুয়ারিতে ঘোষণা করা হয়। এছাড়াও প্রাথমিক ও মাধ্যমিকে বার্ষিক পরীক্ষা ছাড়াই শিক্ষার্থীদের পরে শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করা হয়েছে।

করোনাকালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকলেও ‘অনলাইন শিক্ষা’ কার্যক্রম চালু রেখেছে সরকার।  স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চলমান আছে। কওমী মাদ্রাসাগুলো সীমিত আকারে খুলে দেওয়া হয়েছে।

এদিকে করোনা সংক্রমণ ও এ কারণে মৃত্যু বাড়ছে। মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ২০ হাজার ৭৪৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যাদের মধ্যে নতুন করে ১ হাজার ৭১৯ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এতে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৫ লাখ ৬০ হাজার ৮৮৭ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ২৬ জন নিয়ে এখন পর্যন্ত করোনায় দেশে প্রাণ হারিয়েছেন ৮ হাজার ৫৯৭ জন।
গত ২৪ ঘণ্টায় বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ১ হাজার ৩৫২ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট ৫ লাখ ১৪ হাজার ৪৭৯ জন সুস্থ হয়ে উঠলেন।  এমতাবস্থায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি আরও বাড়তে পারে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *