২০৯ বছর পর যুক্তরাষ্ট্রে রচিত হলো ঐতিহাসিক কালো অধ্যায়

আন্তর্জাতিক

স্বদেশবাণী ডেস্ক: ১৮১২ সাল। ওই বছর ব্রিটিশদের সঙ্গে যুদ্ধের সময় হামলার ঘটনা ঘটেছিল আমেরিকার ক্যাপিটল ভবনে। এরপর এই ২০২১ সালে এসে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস ভবন বা ক্যাপিটলে ডোনাল্ড ট্রাম্প সমর্থকদের ব্যাপক বিক্ষোভ, ভাঙচুর ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

তবে ব্রিটিশদের সঙ্গে যুদ্ধের ওই সময়টায় ক্যাপিটল ভবনটি ছিল নির্মাণাধীন। ব্রিটিশ ভাইস অ্যাডমিরাল স্যার আলেকজান্ডার ককবার্ন ও মেজন জেনারেল রবার্ট রসের নেতৃত্বে ব্রিটিশ বাহিনী ১৮১৪ সালের আগস্টে ওয়াশিংটন ডিসিতে হামলার সময় ক্যাপিটল ভবনে আগুন ধরিয়ে দেয়। তবে বৃষ্টির কারণে ভবনটি পুরোপুরি ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা পায়।

এর আগের বছর আমেরিকানরা ইয়র্কে আপার কানাডার রাজধানী পুড়িয়ে দিয়েছিল। এরই প্রতিশোধ নিতে হোয়াইট হাউসসহ ওয়াশিংটন ডিসির বিভিন্ন এলাকায় আগুন ধরিয়ে দেয় ব্রিটিশ সেনারা। তখনো কানাডার অস্তিত্ব ছিল না। একাধিক ব্রিটিশ উপনিবেশের সমন্বয়ে ওই এলাকা গড়ে ওঠে।

যুক্তরাষ্ট্রের আইন প্রণেতারা যখন গত নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের জয় আনুষ্ঠানিকভাবে অনুমোদন করার জন্য অধিবেশনে বসেছিলেন, ঠিক তখন স্থানীয় সময় বুধবার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শত শত সমর্থক মার্কিন আইনসভা কংগ্রেসের ভবন ক্যাপিটলে ঢুকে পড়ে। কয়েক ঘণ্টা কংগ্রেস ভবন কার্যত দখল করে রাখার পর বিক্ষোভকারীরা ধীরে ধীরে ক্যাপিটল প্রাঙ্গণ ছেড়ে বাইরে চলে যায়। এ ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনে ১২ ঘণ্টার কারফিউ ঘোষণা করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০৬ বছর পর নতুন করে এ হমলা মার্কিনিদের কপালে কালিমা লেপে দিয়েছে। কারণ মার্কিন পার্লামেন্ট ভবন ক্যাপিটল হিলে হামলা বিশ্বগণতন্ত্রের পথিকৃৎ ও রক্ষাকর্তা খ্যাত দেশটির ইতিহাসে সবচেয়ে নজিরবিহীন ও নৃশংস হামলা।

এবার আর বিদেশি বাহিনী নয়, খোদ মার্কিনিরাই নিজ হাতে লিখলেন তাদের ঐতিহাসিক কালো অধ্যায়।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *