যথাসময়ে টিকা এনে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছানোর সুপারিশ

জাতীয় লীড

স্বদেশবাণী ডেস্ক: পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় যথাসময়ে করোনার টিকা এনে জেলা হাসপাতাল এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মাধ্যমে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছানোর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে আজ সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সভায় এ সুপারিশ করা হয়।

কমিটির সদস্য পরিকল্পনা মন্ত্রী এম, এ, মান্নান, মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম, বীর উত্তম, হাফিজ আহমদ মজুমদার, বীরেন শিকদার, রওশন আরা মান্নান এবং আদিবা আনজুম মিতা সভায় অংশগ্রহণ করেন।
সভার শুরুতেই করোনা ভাইরাসের টিকা সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। সরকারের নিয়ন্ত্রণ ও নিবিড় ব্যবস্থাপনায় অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনা ভাইরাসের টিকা জেলা সরকারি হাসপাতাল এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মাধ্যমে নির্ধারিত অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সাধারণ মানুষের কাছে যাতে নির্বিঘ্নে পৌঁছে সে লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করা হয়।

সভায় ২০১৬ সালের জুলাই থেকে গত বছরের জুন পর্যন্ত ৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা বাস্তবায়নকালে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের কয়েকটি সমাপ্ত প্রকল্পের ওপর বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) মূল্যায়ন প্রতিবেদন অনুযায়ী গৃহীত ব্যবস্থার বাস্তব অগ্রগতি সম্পর্কে আলোচনা করা হয়।

সভায় ২০১৯ সালের ১৯ মে অনুষ্ঠিত কমিটির ২য় বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী “২৬৪ চাঁদপুর-৫, ১৩৮ জামালপুর-১, ২২৬ সুনামগঞ্জ-৩, ১৮ লালমনিরহাট-৩ ও ৯২ মাগুরা-২ নির্বাচনী এলাকাসমূহের জন্য নগরায়ন সুবিধা বৃদ্ধির জন্য গৃহীত পাইলট প্রকল্পের অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করা হয়।

সভায় জানানো হয় এ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য গঠিত প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) একটি সভা সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সে সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক পুনর্গঠিত প্রকল্প দলিল পরিকল্পনা কমিশনে প্রেরণের প্রস্তাবটি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) কে সেন্টার অব এক্সিলেন্সে পরিণতকরণ প্রকল্পের (২য় পর্ব) আওতায় যথাশীঘ্র সম্ভব বর্জ্য নিষ্কাশন প্ল্যান্ট পুনঃস্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।

সভায় এস্টাবলিসমেন্ট অব ইনস্টিটিউট ফর পেডিয়াট্টিক নিউরো-ডিজঅর্ডার এন্ড অটিজম ইন বিএসএমএমইউ’ প্রকল্পের আওতায় যে সব ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে তা সংরক্ষণ নিশ্চিত করাসহ প্রয়োজনীয় জনবলের সংস্থান করার সুপারিশ করা হয়।

এছাড়া সভায় সারভাইক্যাল ক্যান্সারের ভ্যাকসিন সরকারি ব্যবস্থাপনায় মহিলাদের বিনামূল্যে প্রদানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের সচিব, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মহাপরিচালকসহ মন্ত্রণালয় এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *