নাসিক কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় অভিযোগ

জাতীয়

স্বদেশবাণী ডেস্ক:  চাঁদা দাবি করায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় অভিযোগ করেছেন এক ডিশ ব্যবসায়ী।

শনিবার দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় এ অভিযোগ করেন সিদ্ধিরগঞ্জের এনায়েতনগর এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী এমরান হোসেন।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান জানান, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জের নাসিক ৮নং ওয়ার্ডের এনায়েতনগর মসজিদ রোড এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী মো. এমরান হোসেন অন্য ব্যবসার পাশাপাশি সরকারের সব দপ্তর থেকে লাইসেন্স নিয়ে বৈধভাবে আয়কর দিয়ে গত পাঁচ বছর ধরে  এলাকায় ডিশ ব্যবসা চালিয়ে আসছেন।

ব্যবসা সম্প্রসারণের সময় নাসিক ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা (৪৬) ও তার সহযোগী মমিনুল আলম পুষণসহ (৩৩) অজ্ঞাত আরও ৪-৫ ব্যক্তি  বাধা প্রদান করে ব্যবসায়ী এমরান হোসেন ও তার কর্মচারীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে  প্রতি মাসে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে।

এমরান হোসেন ব্যবসা পরিচালনার জন্য এক লাখ টাকা চাঁদা কখনও কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা এবং কখনও তার সহযোগী মমিনুল আলম পুষণকে দিয়ে আসছিল।

অভিযোগপত্রে আরও উল্লেখ করা হয়, করোনাকালীন গ্রাহকগণ ঠিকমতো মাসিক ডিশ ভাড়া প্রদান না করায় এমরান হোসেন অর্থ সংকটে থাকায় বিবাদীদের চাহিদামতো প্রতি মাসে চাঁদার এক লাখ টাকা প্রদান করতে ব্যর্থ হয়।

এতে কাউন্সিলর ও তার সহযোগী ব্যবসায়ী এমরানের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ৮ জুলাই দুপুর সাড়ে ১২টায় তার কর্মচারী আব্দুর রহিম বাদশা উত্তর এনায়েতনগর এলাকায় সংযোগ মেরামত করতে গেলে কাউন্সিলরের সহযোগী মমিনুল আলম পুষণ আরও ৬-৭ জন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি আব্দুর রহিম বাদশাকে আটক করে এমরানকে অশালীন ভাষায় গালমন্দ করে।

খবর পেয়ে এমরান হোসেন ঘটনাস্থলে গেলে মমিনুল আলম পুষণ ও তার সহযোগীরা এমরান হোসেনকে আবারও অশালীন ভাষায় গালমন্দ করে।

একপর্যায়ে কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে তার সামনেই তার সহযোগী মমিনুল আলম পুষণ কোমর থেকে দেশীয় ধারালো চাকু বের করে হুমকি দেয়, এখন থেকে তুই কাউন্সিলরকে (রুহুল আমিন মোল্লা) প্রতি মাসে দুই লাখ টাকা চাঁদা দিবি, নতুবা তোর ব্যবসা বন্ধ করে দিব।

এ নিয়ে কোনো প্রকার বাড়াবাড়ি বা কোথাও অভিযোগ করলে এমরানকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ওই প্রতিষ্ঠানের ফাইবার জয়েন্ট মেশিন (যার মূল্য দেড় লাখ টাকা) জোরপূর্বক নিয়ে যায়। পাশাপাশি মাসিক ভাড়া আদায় করতে নিষেধ করে চলে যায়।

এতে ভীতসন্ত্রস্ত এমরান হোসেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ১০ জুলাই লিখিত দুপুরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। যার অনুলিপি জেলা পুলিশ সুপারের কাছে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে কথা হলে নাসিক ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা বলেন, আড়াই বছর ধরে ডিশ ব্যবসায়ী ইমরান টাকা দিয়ে আসছে। কিন্তু গত ৪ মাস ধরে ঠিক মতো টাকা দিচ্ছে না।

সে আমার কাছেই টাকা দিত, আমি অন্য একজনকে দিয়ে দলীয় পোলাপাইনদের বণ্টন করে দিতাম। থানায় অভিযোগ যে কেউ করতে পারে, ওসির সঙ্গে কথা হইছে, ওসি বলছে ২/৩ দিন পর বসবে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *