হাজীগঞ্জে সংঘর্ষ-মৃত‌্যু, ১৪৪ ধারা জারি

জাতীয়

স্বদেশবাণী ডেস্ক : চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ বাজারে মিছিলে গুলিতে তিনজন নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- বাবলু (২৮),  আল আমিন (১৮) ও শিশু হৃদয় (১৪)। এই ঘটনায় আহত হয়েছে কমপক্ষে ২০ জন।

এদিকে সহিংস পরিস্থিতিতে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত হাজীগঞ্জ পৌর এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন।

হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সোহেল আহমেদ চিশতী বলেন, হাসপাতালে চারজন ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে তিনজন মারা গেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী মজিবুর রহমান পাটোয়ারী জানান, বুধবার সন্ধ্যায় হঠাৎ হাজীগঞ্জ বাজারে একটি প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি বাজারের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে হাজীগঞ্জ মধ্য বাজার মন্দিরের সামনে গেলে হট্টগোল শুরু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে গেলে সংঘর্ষ শুরু হয়।

পুলিশ জানায়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে তারা রাবার বুলেট ছুড়েছে।

এতে মিছিলে থাকা রায়চোঁ গ্রামের আল আমিন (১৮), হোটেল শ্রমিক চাপাইনবাবগঞ্জের বাবলু (২৮) ও পথচারী শিশু রান্ধুনীমুড়া গ্রামের ফজলুর ছেলে হৃদয় (১৫) গুলিবিদ্ধ হন। পরে তাদেরকে হাজীগঞ্জ থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে রাতে হাজীগঞ্জ পশ্চিম বাজার বিশ্বরোড এলাকায় গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেছেন।

পরিস্থিতি শান্ত করতে হাজীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান গাজী মো. মাঈনুদ্দিন, পৌর মেয়র আসম মাহবুব উল আলম লিপনসহ নেতারা ও পুলিশ প্রশাসন প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন।

হাজীগঞ্জ থানার ওসি হারুনুর রশিদ বলেন, আমরা পরিস্থিতি সামাল দিতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। হামলাকারীদের শনাক্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ বলেন, মৃত্যুর কথা শুনেছি। তবে কয়জন, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি এখনও।

এদিকে সহিংস পরিস্থিতিতে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত হাজীগঞ্জ পৌর এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন।

একই সঙ্গে বুধবার রাতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে দুই প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে বলে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ জানিয়েছেন।

হাজীগঞ্জ থানার ওসি হারুনুর রশিদ রাতে বলেন, হাজীগঞ্জ বাজারের পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *