ঝুঁকি নিয়ে সেতু পারাপার, ভোগান্তিতে চার গ্রামের মানুষ

জাতীয়

স্বদেশবাণী ডেস্ক: এলাকাবাসীর নিজ উদ্যোগে তৈরি কাঠের সেতু দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করতে হচ্ছে চার গ্রামের সাধারণ মানুষকে। এভাবে পারাপার করা যেমন ঝুঁকিপূর্ণ তেমনি ভোগান্তিও পোহাতে হচ্ছে।

চার বছর আগে সেতুটি ভেঙে পড়ায় চার গ্রামের মানুষজন এভাবেই চলাচল করছে। নতুন সেতু নির্মাণ কিংবা সংস্কারের জন্য কোনো উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার ভাতুরিয়া ইউনিয়নের জিগা গ্রামের নানানদহ খালের চিত্র এটি। সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা যায়, সেতুর দুই পাশ ভেঙে কাত হয়ে আছে। দুই পাশের ভাঙা অংশে বাঁশের খুঁটির ওপর কাঠ বিছিয়ে চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 

সেতুর এক পাশে মাগুড়া, বহুতি, জিগা ও মুলকান গ্রাম। এই চার গ্রামের মানুষ চৌরঙ্গী বাজার, কাঁঠালডাঙ্গী বাজার ও যাদুরানিহাটে যাওয়ার জন্য এ সেতু ব্যবহার করে। কিন্তু সেতু দিয়ে ভারি কোন ভ্যান বা অন্য যানবাহন চলতে পারে না। তাই ওই গ্রামের মানুষদের উৎপাদিত পণ্য বাজারে নিতেও অনেকটা পথ ঘুরে যেতে হয়।

স্থানীয়রা জানায়, ২০০৮ সালে নানানদহ খালের ওপর ৫০ ফুটের দীর্ঘ সেতুটি নির্মাণ করা হয়। এরপর ২০১৭ সালের আগস্টের বন্যায় ওই সেতুর দুই পাশ দেবে গিয়ে ভেঙে যায়।
স্থানীয় গ্রামের বাসিন্দা রমিজুল হক বলেন, সেতুর জন্য কতজনকে বলা হয়েছে, কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। কয়েক দিন আগে গ্রামবাসী নিজেরা চাঁদা তুলে কাঠ বিছিয়ে জোড়াতালি দিয়েছে। কিন্তু সেতুতে উঠলেই সেতুটি নড়েচড়ে ওঠে। কয়েকজন পানিতে পড়ে গিয়ে আহত হয়েছে।

জিগা গ্রামের সিরাজুল ইসলাম জানান, আশপাশের চার গ্রামের মানুষ এ সেতু দিয়ে পণ্য পরিবহন করত। কিন্তু সেতুটি ভেঙে যাওয়ায় গ্রাম থেকে শহরে ধান, চাল ও কৃষিপণ্য যানবাহনে পরিবহন করা যাচ্ছে না। এতে করে গ্রামের কৃষক অনেক ক্ষতির সম্মুক্ষিন হচ্ছে। দুই পাশের হাটে মালামাল নিয়ে যেতে হলে কমপক্ষে চার কিলোমিটার পথ ঘুরে যেতে হয়। অসুস্থ ব্যক্তি ও রোগীদের হাসপাতালে যেতেও অনেক সমস্যা হয়।

ভাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহাজাহান জানান, সেতুটি নতুন করে নির্মাণ করা খুবই জরুরি। বিষয়টি নিয়ে তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান ও প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা বলেছেন কিন্তু সেতুটি মেরামত করা যাচ্ছে না।

হরিপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিয়াউল হাসান জানান, এখানে নতুন সেতু নির্মাণের জন্য তদবির করা হচ্ছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে নতুন একটি সেতুর কাজ শুরু হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *