গৃহবধূর নাইওর যাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে শ্বশুরের মৃত্যু

জাতীয়

স্বদেশবাণী ডেস্ক : ঢাকার ধামরাইয়ে গৃহবধূর নাইওর যাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে মৃত্যুবরণ করেছেন বৃদ্ধ শ্বশুর হযরত আলী (৬০)। শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে গৃহবধূ জোর করে পিত্রালয়ে নাইওর যাওয়ার চেষ্টা করলে এ ঘটনা ঘটে।

শনিবার বিকালে এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার যাদবপুর ইউনিয়নের গুমগ্রাম খোলবাড়ী এলাকায়। এ ঘটনায় পুলিশ ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কুশুরা ইউনিয়নের কান্ট্রাহাটী গ্রামের মো. লাল মিয়ার মেয়ে লামিয়া আক্তারের সঙ্গে যাদবপুর ইউনিয়নের গুমগ্রাম খোলাবাড়ী গ্রামের মো. হযরত আলীর ছেলে মো. আব্দুল আউয়ালের বছর দুয়েক আগে বিয়ে হয়। ওই গৃহবধূ ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ায় শীতের কথা ভেবে তার পিতা লাল মিয়া আরও কয়েকজনকে সঙ্গে করে মেয়েকে নতুন লেপ-তোশক দিতে শনিবার দুপুরে তার শ্বশুরালয় যান। বিকাল ৫টার দিকে লাল মিয়া নিজবাড়ি রওনা হলে মেয়ে লামিয়া আক্তারও নাইওর যাওয়ার জন্য পিতার পেছনে রওনা হয়ে রাস্তায় চলে আসেন।

এতে বাধা দেন স্বামী আব্দুল আউয়াল। সে স্ত্রীকে জাপটে ধরে ঘরের ভেতরে নেওয়ার চেষ্টা করে। গৃহবধূ স্বামীর সঙ্গে ঘরে যেতে রাজি না হয়ে উল্টো স্বামীর সঙ্গে ধ্স্তাধস্তিতে লিপ্ত হয়। এ সময় ওই গৃহবধূর পিতা ও তার সঙ্গীয়রা বাঁশের লাঠি দিয়ে তার স্বামী ও শ্বশুরকে এলাপাতাড়িভাবে পেটাতে থাকে। এতে তার বৃদ্ধ শ্বশুর হযরত আলী ঘটনাস্থলেই মৃত্যবরণ করেন। অবস্থা বেগতিক বুঝতে পেরে ওই গৃহবধূর পিতা লোকজন নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে সঠকে পড়ে।

ওসি তদন্ত ওয়াহেদ পারভেজ বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে বৃদ্ধ হযরত আলী হার্টঅ্যাটাকে মারা গেছেন। এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে পরামর্শ করে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ মিজানুর রহমান মিজু বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ওই বাড়িতে ছুটে যাই। উভয়পক্ষকে সান্ত্বনা দেওয়া ছাড়া আর কোনো ভাষা ছিল না।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *