টিপকাণ্ড: অভিযোগের ‘সত্যতা’ মিলেছে

গণমাধ্যম জাতীয়

স্বদেশ বাণী ডেস্ক: টিপ পরা নিয়ে রাজধানীর তেজগাঁও কলেজের শিক্ষক ড. লতা সমাদ্দারকে হেনস্তার প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) তদন্ত কমিটি।

অভিযোগ প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত কনস্টেবল নাজমুল তারেকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শনিবার (৯ এপ্রিল) বিকেলে জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ড. লতা সমাদ্দারকে হেনস্তার ঘটনায় প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত প্রটেকশন বিভাগের কনস্টেবল নাজমুল তারেকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হবে। এজন্য যে প্রক্রিয়া অনুসরণ করা প্রয়োজন তাই করা হবে।

গত ২ এপ্রিল রাজধানীর গ্রিন রোডের বাসা থেকে কলেজে যাওয়ার পথে হেনস্তার শিকার হন বলে দাবি করেন লতা সমাদ্দার।

তিনি অভিযোগ করেন, হেঁটে কলেজের দিকে যাওয়ার সময় হুট করে পাশ থেকে লম্বা দাড়িওয়ালা এক যুবক ‘টিপ পরছোস কেন’ বলেই গালিগালাজ শুরু করেন। ওই যুবকের গায়ে পুলিশের পোশাক ছিল। পরে লতা সমাদ্দার শেরেবাংলা নগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগের পর ৪ এপ্রিল নাজমুল তারেককে শনাক্ত করে পুলিশ। এ ঘটনায় সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে ওই কনস্টেবলকে।

স্ব.বা/ রু

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *