সুদ ব্যবসায়ীর কান্ড! টাকা না পেয়ে ধর্ষনের চেষ্টা !

বিশেষ সংবাদ রাজশাহী লীড

বাঘা প্রতিনিধি,:
রাজশাহীর বাঘায় ব্যবসার জন্য সুদে টাকা নিয়েছিলেন ফুসকা ব্যবসায়ী সাজেদুল। নিজের ব্যাংক হিসেবের অনুকুলে স্বাক্ষরিত চেকে টাকার অংক না বসিয়ে গ্রামের মুন্নাফের ছেলে রতনের কাছ থেকে ৩ বছর আগে বিশ হাজার টাকা নিয়েছিলেন তিনি। যার লাভ দরুন রতনকে দিয়েছেন চল্লিশ হাজার টাকা। এর পরেও আসল বিশ হাজার টাকার সংগে আরো দশ হাজার টাকা সুদ যোগ করে ত্রিশ হাজার টাকা পাওনা করে। কিস্তিতে এ টাকা দিতে না পারায়,মাঝে মধ্যে সাজেদুলের স্ত্রীকে কু-প্রস্তাব দিতো রতন।

সর্বশেষ সোমবার (০৩-১২-১৮) সকাল ৬ টার সময় সাজেদুলের বাড়িতে টাকা নিতে যান রতন। ওই সময় বাড়িতে ছিলনা সাজেদুল। তার স্ত্রী রতনকে জানায়, বাড়িতে এলে টাকা দেওয়ার জন্য সাজেদুলকে বলবে। এসময় ফাঁকা বাড়িতে একা পেয়ে টাকা দেওয়া লাগবে না বলে সাজেদুলের স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরে কু প্রস্তাপ দেয় রতন। ধ্বস্তাধস্তির এক পর্যায়ে শয়ন কক্ষের মেঝেতে শোয়ায়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। বাড়ির এলাকায় থেকে স্ত্রীর চিৎকারে তাৎক্ষনিক ঘরে প্রবেশ করে ওই ঘটনা দেখেই রতনের সাথে সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে সাজেদুল। তাকে উদ্ধারে গিয়ে রতনের পেশী শক্তির কাছে পরাজিত হয়ে পরিধেয় বস্ত্রাদি ছিঁড়ে কিল ঘুষিতে মারাতœক ভাবে আহত হন সাজেদুল ও তার স্ত্রী। স্থানীয় সাইদুল ইসলাম ও মিলন সহ অনেকেই জানান, পরে তারা হাসপাতালে যান। ঘটনা ঘটেছে উপজেলার চন্ডিপুর বড় ছয়ঘটি গ্রামে। তারা উভয়েই একই গ্রামের বাসিন্দা।

সোমবার দুপুরে হাসপাতালে গিয়ে কথা বললে সাজেদুলের স্ত্রী রুপালি জানান,এ ঘটনায় তিনি বাদি হয়ে বাঘা থানায় একটি অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেন গরীব বলে তো মান সন্মান বিকিয়ে দেওয়া যায়না। তাই আইনের আশ্রয় নিয়েছেন।

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মহাসিন আলী অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত রতনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে তদন্ত পুর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Spread the love
  • 75
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    75
    Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published.