রাজশাহীতে কৃষি ভিত্তিক ইপিজেড গড়ে তোলা হবে: মিনু

রাজশাহী লীড

স্টাফ রিপোর্টার:
সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আজ সোমবার সকাল ৯টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ২২নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য এবং রাজশাহী সদর আসনের ধানের শীষের প্রার্থী জননেতা মিজানুর রহমান মিনু। নগরীর আলুপট্টির মোড় থেকে গণসংযোগ শুরুর পুর্বে বলেন, রাজশাহী অতিত থেকেই বিএনপি অধ্যুষিত এলাকা। এখানে প্রতিটি মানুষ বেগম খালেদা জিয়াকে ভাল বাসে এবং বরাবরই ধানের শীষে ভোট প্রদান করেন। এবারও এর কোন ব্যাতিক্রম ঘটবে না। ভোটারগণ ধানের শীষে ভোট দেওয়ার জন্য মুখিয়ে আছে। এছাড়াও আজকে থেকে সেনাবাহিনী মাঠে নামায় জনগণের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। সরকার আর একতরফাভাবে নির্বাচন করতে পারবেনা বলে জানান মিনু।

তিনি আরো বলেন, রাজশাহী শিল্প বিপ্লবের দিক থেকে পিছিয়ে রয়েছে। বেকারদের রাজশাহী ভিত্তিক কর্মসংস্থানের তেমন জায়গা নাই। এই বিষয় মাথায় রেখে রাজশাহীতে কৃষিভিত্তিক ইপিজেড গড়ে তোলার ঘোষনা দেন। ইপিজেড হলে রাজশাহীতে ব্যপকভাবে শিল্প কারখানা প্রতিষ্ঠিত হবে। এতে বেকার সমস্যা অনেকাংশে লাঘব হবে। এছাড়াও স্ব-অবস্থানে বসবাস করার ক্ষেত্রে আইনশৃংখলার উন্নতির জন্য আরএমপি তিনি প্রতিষ্ঠা করেন। কিন্তু বর্তমানে রাজশাহীসহ সারা দেশে আইনশৃংখলার অবনতি হয়েছে। বিচার বিভাগ একতরফা ভাবে কাজ করছে। নির্বাচিত হলে আইন শৃংখলার উন্নতি ও রাজশাহীবাসীকে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করতে ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার ঘাটানো হবে বলে জানান তিনি।

মিনু আরো বলেন, বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী নানা প্রকার মিথ্যাচার করছেন। পাকিস্তানের সাথে বিএনপি’র কোন সম্পর্ক নাই। বিএনপি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষানার মাধ্যমে বাংলাদেশ নামে একটি দেশ প্রতিষ্ঠিত হয়। বিএনপি দেশকে ভালবাসে। কিন্তু বর্তমান সরকার একটি দেশের উপর নির্ভর করে চলে। তারা দেশকে সেই দেশের নিকট বিক্রি করার পাঁয়তারা করচে। আবার সেই দেশের উপর নির্ভর করে পূণরায় ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে। কিন্তু সেই আসা আর পুরণ হবেনা বলে জানান তিনি। সেইসাথে সকল নেতাকর্র্মীদের স্ব স্ব ওয়ার্ডে প্রচার প্রচারণা করার জন্য নির্দেশ দেন। এছাড়াও নির্বাচনের পুর্বের দিন থেকে কেন্দ্র পাহারা দেওয়া এবং ভোট গ্রহন শেষে গণনা শেষ করে প্রিজাইডিং অফিসারের স্বাক্ষর নিয়ে পোলিং এজেন্টদের কেন্দ্র ছাড়ার পরামর্শ দেন মিনু।

গণসংযোগের সময় অত্র এলাকা মিছিলের নগরীতে পরিণত হয়। তারা বেগম জিয়ার মুক্তির জন্য ধানের শীষে ভোট প্রদানের জন্য স্লোগান দিতে থাকে। এ সময় বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সহিদুন্নাহার কাজী হেনা, মহানগর বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি নজরুল হুদা, সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বজলুল হক মন্টু, বোয়ালিয়া থানা বিএনপি’র সভাপতি সাইদুর রহমান পিন্টু, ২২নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি শ্যামল রায়, সাধারণ সম্পাদক মির্জা পারভেজ রিপন, সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান বিপ্লব, প্রবীন বিএনপি নেতা সনু, সান্টু, টুটুল, মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি ও ধানের শীষের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট ওয়ালিউল হক রানা, সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রিটন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবেদুর রেজা রিপন, সাংগঠনিক সম্পাদক আনন্দ কুমার, মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডভোকেট রওশন-আরা-পপি, মুসলেমা পপি, শাহনাজ বেগম শিখা, জরিনা বেগম, মনোয়ারা, মহিলা নেত্রী শাহনাজ পারভীন ও নার্গিস, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, যুগ্ম আহবায়ক আকবর আলী জ্যাকি ও নাহিনসহ অত্র ওয়ার্ড বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মী ও সহস্রাধিক নারী পুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

Leave a Reply

Your email address will not be published.