তানোর উপজেলা পরিষদের অফিস সহকারী তোফিকের ডিবি পরিচয়ে বাইক ছিনতাই আটক, তোলপাড়

রাজশাহী লীড

তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোর উপজেলা পরিষদের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটরে কর্মরত তোফিকুল ইসলাম তোফিক ও তোহিদুল চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোল উপজেলার একগ্রামের বাড়ীতে প্রবেশ করে ভুয়া ডিবি পুলিশ সেজে নতুন মটরসাইকেল ছিনতাই করে নিয়ে আসার সময় গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর কলেজপাড়া নামক স্থানে পুলিশ তাদের আটক করেন । এঘটনায় মটরসাইকেল মালিক নাচোল উপজেলার দানিয়াল গাছি গ্রামের মুকুল বাদি হয়ে গোমস্তাপুর থানায় গত ২৯শে জানুয়ারি মামলা দায়ের করেন । গত ২৯শে জানুয়ারি সোমবার সন্ধ্যার দিকে ঘটে আটকের ঘটনাটি ।প্রাথমিক অবস্থায় ঘটনা চাপা পড়লেও গতকাল সোমবার দিনব্যাপী তোফিকের এমন ঘটনায় হতবম্ভ হয়ে পড়েন অনেকে। ফলে একজন চাকুরী জিবির এমন কান্ডে উঠেছে চরম শাস্তির দাবি ।কারন তাঁর বিরুদ্ধে রয়েছে অভিযোগের পাহাড়।

জানা গেছে তানোর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দপ্তরের অফিস সহকারীর চাকুরী করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোল উপজেলার ফতেপুর সানপুর গ্রামের নাইমুল হকের পুত্র তোফিকুল ইসলাম তোফিক(২৮) ।তিনি গতপ্রায় ৭/৮দিন থেকে অফিসে আসছেন না। কর্তৃপক্ষ মোবাইল করেও কোন যোগাযোগ করতে পারছিল না। এঅবস্থায় গতকাল সোমবার সকালের দিকে ম্যাংগো সিটি নামের অনলাইন নিউজের মাধ্যমে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। তারপর সবাই নিশ্চিত হন তোফিক ভুয়া ডিবি পরিচয়ে বাইক ছিনতায়ের ঘটনায় জেলে আছেন । বেশ কিছু কর্মচারী জানান পাপ নাকি বাবকেও ছাড়েনা তোফিক চেয়ারম্যানের দপ্তরের অফিস সহকারী হলে এর আগের ইউএনও শওকাত আলীর সময় থেকে বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ করতেন তিনি। তোফিকের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকার প্রকল্প আছে। এমনকি পরিষদের পুকুর পাড়সহ কোটি টাকা ব্যয়ে কাজ করেন তোফিক । যা তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে বলেও জানান এবং ব্যাপক ক্ষমতার দাপটও ছিল তাঁর ।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে গোমস্তাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) জসিম উদ্দিন জানান নাচোল উপজেলার দানিয়ালগাছিগ্রামের মুকুলের বাড়িতে গিয়ে ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাঁর ক্রয়কৃত মটরসাইকেল ছিনতাই করে পালিয়ে আসার সময় রহনপুর পৌর এলাকার কলেজ মোড় নামক স্থানে ছিনতাই কারী তোফিকুল ইসলাম তোফিক ও তাঁর সহযোগী তোহিদুলকে আটক করা হয় এবং বাইক উদ্ধার করা হয়েছে। এঘটনায় বাইক মালিক মুকুল বাদি হয়ে দুই ছিনতাই কারীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেছেন । মামলা নং ১৯ ।

তানোর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বন্দনা রানীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান বেশ কয়েকদিন ধরে তোফিককে অফিসে দেখছিনা।সে আমাদের দপ্তরের অফিস সহকারী হলেও ইউএনওর দপ্তরে কাজ করেন । তোফিক সপ্তাহ ধরে অফিসে নেই কি ব্যবস্থা নেয়া হবে জানতে চাইলে তিনি জানান যে দপ্তরে কাজ করেন সে কর্মকর্তাই ভালো বলতে পারবেন। এমন ঘটনা শুনে অবাক হতেই হয়। আইনে যা আছে সে ব্যবস্থাই নেয়া হবে বলে জানান তিনি।এবিষয়ে তানোর উপজেলা নির্বাহী অফিসার চৌধুরী মোঃ গোলাম রাব্বীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ঘটনা অজানা।

Spread the love
  • 115
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    115
    Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published.