বরাদ্দ নেই, তবুও বিনা ভাড়ায় বাস করছেন সরকারি ভবনে!

রাজশাহী লীড
আল-আফতাব খান সুইট, নাটোর: নাটোরের সিংড়া উপজেলার সরকারি বাসভবনের বরাদ্দ নেই, তবুও একজন ৩ বছর, ১ জন দেড় বছর, ১ জন ৬ মাস এবং ১ জন তিন মাস ধরে  বসবাস করছেন সরকারি বাসভবনে। সরকারি ভবনে বাস করলেও এদের কেউ বাসভনের ভাড়া দেননা।
এদের ২জন দু’টি প্রতিষ্ঠানের নৈশ প্রহরি, ১ জন গাড়ি চালক এবং ১ জন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা।
এরা দির্ঘদিন ধরে বিনা ভাড়ায় সরকারি বাসভবনে বসবাস করে ভাড়া না দেয়ায় সরকার হারিয়েছে কয়েক লাখ টাকার রাজস্ব। সারকারি বাসা বরাদ্দ কমিটি এই চারজনকে বাসা ভাড়া পরিশোধের তাগিদ দেওয়া সহ বাসা ছাড়ার কয়েক দফা নোটিশও করেছে। কিন্তু  কোন  কিছুতেই তোয়াক্কা করছেন না তারা।
সূত্রে জানা যায়, সিংড়া উপজেলা কৃষি অফিসার এর গাড়িচালক মো. সেলিম রেজা। তিনি সরকারি বাসভবনের ‘শাপলাথ ভবনের ৪ নম্বর ইউনিটে প্রায় ৩ বছর যাবৎ বিনা ভাড়ায় পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর কার্যালয়ের নৈশপ্রহরি মোতালেব হোসেন। তিনি ‘মাধবী’ ভবনের ১ নম্বর ইউনিটে ৩ মাস ধরে বসবাস করছেন। ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা, সাবেক উপজেলা টেকনিশিয়ান রফিকুল ইসলাম ‘চামেলি’ ভবনের ২ নম্বর ইউনিটে গত বছরের জানুয়ারি থেকে বসবাস করছেন।
সমাজসেবা অধিদপ্তরের ট্রেনিং সেন্টারে প্রায় ৬ মাস যাবৎ বাস করছেন বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজের নৈশপ্রহরি মোঃ ফজলু। নিয়ম অনুযায়ী তাদের প্রত্যককে ৪ হাজার ৫০০ টাকা করে মাসিক ভাড়া পরিশোধ করার কথা। কিন্তু তারা তা করেননি। বিনা ভাড়ায় সেখানে বসবাস করছেন।
এতে করে সরকার প্রায় ৩ লাখ টাকার রাজস্ব হারিয়েছে। ইত্যবসরে তাদের প্রত্যেককে ভাড়া পরিশোধ করার জন্য বারবার তাগাদা দিয়েছে সরকারি বাসা বরাদ্দ কমিটি। এমনকি বাসা ছাড়ার নোটিশও দেয়া হয়েছে তাদের। কিন্তুকোন কিছুকেই তোয়াক্কা করছেননা তারা ।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর কার্যালয়ের নৈশপ্রহরি মোঃ মোতালেব হোসেন জানান, ভবনটি পরিত্যক্ত হওয়ায় ইউএনও স্যার আমাকে বসবাস করতে দিয়েছে। আমি ডিসেম্বরে চলে যাবো।
উপজেলা কৃষি অফিসার এর গাড়িচালক মোঃ সেলিম রেজাথর যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি বাহিরে আছি, এসে কথা বলবো।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সরকারি বাসা বরাদ্দ কমিটির সভাপতি মোঃ শফিকুল ইসলাম শফিক বলেন, তাদেরকে কয়েকবার নোটিশ দেয়া হয়েছে বাসা ভাড়া পরিশোধ করার জন্য। তারা পরিশোধ না করায় বাসা ছাড়ার নোটিশও দেয়া হয়েছে। তাতেও তাদের কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। সর্বশেষ উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভায় সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রধানদের তাদের তাগিদ দেয়ার কথা বলা হয়েছে। এরপরেও যদি তারা ভাড়া পরিশোধ না করেন তাহলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *