উন্নয়নে পাল্টে গেছে ভারশোঁ

রাজশাহী লীড
মান্দা  প্রতিনিধি: বর্তমান সরকারের আমলে উন্নয়নে পাল্টে গেছে নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার ১নং ভারশোঁ ইউনিয়নের চিত্র। দৃশ্যমান উন্নয়নে এগিয়ে গেছে এই ইউনিয়নটি। তাকালে দেখা যায় উন্নয়নের ছোঁয়া। গ্রামকে শহরে রূপান্তরিত করতে প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ় অঙ্গীকার যেন বাস্তবে রূপ নিয়েছে উপজেলার এই ইউনিয়নে।
উন্নয়নে এগিয়ে যাওয়ায় এই ইউনিয়নটি জেলার শ্রেষ্ঠ ইউনিয়ন পরিষদ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। এছাড়াও উপজেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসেবে মোস্তাফিজুর রহমান সুমন সম্মাননা পেয়েছেন। ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে সরকারি ভাবে বিদেশ ভ্রমণের সুযোগ হয়েছে তার ।
উন্নয়নমূলক কাজ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান সুমন।
ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন তহবিল থেকে ৩ কোটি ৩৮ লক্ষ টাকা ব্যয় করে চৌবাড়িয়া গরু হাটের জন্য জমি ক্রয় করেছেন তিনি।
জনদূর্ভোগ লাঘব করতে ৪০ লক্ষ টাকা বরাদ্দের ২৫ টি ব্রিজ ৪ থেকে ৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দের ৭টি কালভার্ট, ৩ হাজার ৫শত ফিট ড্রেন নির্মাণ সহ ২ হাজার ফিট আরসিসি ড্রেনের কাজ করেন।
ইউনিয়নকে আলোকিত করতে ৩ শতটি স্ট্রিট লাইট স্থাপনসহ সাড়ে ৪ হাজার পরিবারে বিদ্যুতায়নের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন তিনি।
চলাচলের দূর্ভোগ লাঘবে ২৫ কিঃমিঃ এইচবিবি রাস্তা, ৭ কিঃমিঃ সোলিং রাস্তা এবং ৫ কিঃমিঃ সিসি রাস্তার কাজ করেন।
পানির সংকট দূরীকরণে ১৮টি গ্রামে ৫শত টিউবয়েল স্থাপন ও সাপ্লাই পানির ব্যবস্থা করেছেন। গ্রামীণ জনদুর্ভোগ দূর করতে প্রায় ৩০ কিঃমিঃ কাঁচা রাস্তা তৈরি করেন।
বোরো মৌসুমের সেচ কাজে সুবিধার্থে ২০ কিঃমিঃ খাল সংস্কার, মাঠ থেকে সহজে আসার জন্য বিলের ভিতর দিয়ে রাস্তা নির্মাণ, পানি পানের জন্য টিউবয়েল স্থাপন, বিশ্রামের জন্য সেড নির্মাণ করে দিয়েছেন।
প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় ও বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে ৩০ হাজার তালের আটিঁ রোপন করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন।
বেকারত্ব দূরীকরণে প্রায় শতাধিক বেকার যুবক যুবতীদের ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে দিয়েছেন।
কৃষি খাতের উন্নয়নে সেচ প্রকল্পে ১৮ টি এসটি ডাবøæউ ও ১২ টি ডিটি ডাবøæউ স্থাপন করে বিদ্যুৎ সংযোগের মাধ্যমে প্রায় দেড় হাজার বিঘা জমি সেচের আওতায় এনেছেন।
ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের ৩শত পরিবারকে সানিটেশনের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। মৎস্যজীবীদের জন্য ৪টি পুকুর সংস্কারসহ
ইউনিয়নে দুটি হাট বাজার মনিটরিং এর জন্য সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। এছাড়াও শিক্ষা খাতে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান সুমন।
এই ইউনিয়নের মোট ভাতাভোগীর মধ্যে ১৮শত বয়স্ক , ৯শত বিধবা , ৫শত ৫০ জন প্রতিবন্ধী , খাদ্যবান্ধব তালিকার আওতায় ১৪শত ৬৪জন, দুস্থমাতা ৬শত জন, মাতৃকালীন ভাতা ৩শত জন ও হরিজন ৩০ জন সুবিধাভোগী রয়েছে।
এ ব্যাপারে ভারশোঁ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান সুমন বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করতে এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সাবেক বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী মুহা: ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিকের সার্বিক সহযোগিতায় এই ইউনিয়নে উন্নয়ন করা সম্ভব হয়েছে।
আমি আবারও নির্বাচিত হলে পরিকল্পনা অনুযায়ী ইউনিয়নকে এগিয়ে নিতে অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করব।
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *