জেল হত্যা দিবসে রাসিকের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

রাজশাহী লীড

স্টাফ রিপোর্টার: জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের আয়োজনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১১ টায় নগরভবন সিটি হল সভাকক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাসিকের সাবেক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট আব্দুল হাদী। তিনি বলেন, রাজশাহীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ অঞ্চলের দায়িত্ব প্রদান করেছিলেন শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান হেনাকে। সাদাসিধে জীবন যাপন করতেন এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান। দুঃখী মানুষের জনদরদী নেতা ছিলেন তিনি। যার প্রমান মিলে তাঁর মৃত্যুকালে তিনি তেমন কোন অর্থ সম্পদ রেখে যাননি। তাঁর নির্লোভ ও ত্যাগী মনোভাব তাঁকে জাতীয় নেতায় পরিণত করেছে।

সম্মানিত বক্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর রুহুল আমিন প্রামানিক বলেন, ৩ নভেম্বর জেল হত্যা দিবস একটি বিভীষিকাময় দিন। ৭৫ এর পনেরই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবার হত্যার পর দ্বিতীয় কলংকজনক অধ্যায়। পনেরই আগস্টের নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর তিন মাসেরও কম সময়ের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বীর সেনানী ও চার জাতীয় নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, এএইচএম কামারুজ্জামান এবং ক্যাপ্টেন মনসুর আলীকে এই দিনে কেন্দ্রীয় কারাগারের অভ্যন্তরে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। বিপথগামী সেনাসদস্য ও দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ও চার জাতীয় নেতাকে বিচ্ছিন্ন করা যায় না। শেখ মুজিবুর রহমান মানে কোন কিছুর কাছে মাথা নত না করা। জাতীয় চার নেতা মানে কোন কিছুর কাছে মাথা নত না করা। আর তাঁদের আত্মত্যাগেই পৃথিবীর বুকে বাংলাদেশ নামের একটি দেশ আমরা পেয়েছি।

সভায় আরো বক্তব্য দেন রাসিকের ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ২২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল হামিদ সরকার টেকন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এ.বিএম শরীফ উদ্দিন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নূর ইসলাম তুষার, কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আজমীর আহমেদ মামুন। মঞ্চে উপবিস্ট ছিলেন রাসিকের সচিব মোঃ মশিউর রহমান। সভায় রাসিকের প্যানেল মেয়র-৩ তাহেরা বেগম মিলি, ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুস সোবহান লিটন, ২৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ারুল আমিন, ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামাল হোসেন, ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম তজু, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর শিরিন আরা খাতুন, মাজেদা বেগম, উম্মে সালমা, নাদিরা বেগম, সুলতানা রাজিয়া, রাসিকের প্রকল্প উপদেষ্টা সাবেক প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক, প্রধান প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম, বাজেট কাম হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম খান, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আবু সাহেল মোঃ নূর-ঈ সাইদ, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মোঃ মামুন, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফএএম আঞ্জুমান আরা বেগম, রাসিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি দুলাল শেখ ও বিভিন্ন শাখার অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *