বাঘায় আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

রাজশাহী

বাঘা প্রতিনিধি: সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর চোখকে ফাঁকি দিয়ে আমদানি নিষিদ্ধ ভারতীয় ফেনসিডিলসহ মাদকদ্রব্য এপারে প্রবেশ করছে। কিভাবে আসছে অনেকের কাছে এমন প্রশ্ন দেখা গেছে। যেহেতু তারা অবৈধভাবে অনুপ্রবেশসহ সীমান্ত রক্ষায় কাজ করেন। মাদক নিয়ন্ত্রণে নানা পদক্ষেপের পরও তরুণ প্রজন্মের একটি অংশ এখনও মাদকাসক্ত রয়ে যাওয়ায় আশঙ্কা প্রকাশ করে উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় আলোচনায় উঠে আসে মাদক দেশের জন্য ‘বড় সমস্যা’। ‘যারা ফেনসিডিল খায়, তারা এখন অন্য মাদক সেবন করছে। ধনীর দুলালদের কীসের টেনশন? তারা সকালে উঠে বাবার হোটেল খাচ্ছে। তারা ফ্যাশনের জন্য মাদকসেবন করেন।’ ‘আগামী প্রজন্মকে মাদকমুক্ত গড়ার জন্য প্রত্যেকের অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে। আগামী প্রজন্মকে প্রস্তুত করে যেতে না পারলে ভবিষৎতে খারাপ আকার ধারন করবে।

উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বারোপসহ বাল্যবিয়ে,যানজট,দ্রব্য মূল্যে ও অবৈধ টোল আদায় নিয়ন্ত্রন,আইন শৃঙ্খলা বিরোধী কার্যকলাপ, টিউশনী, সময় মেনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকদের উপস্থিতি,সরকারি সেবার বিষয় সহ নানান বিষয়ে আলোচনা হয়।
মঙ্গলবার(১৫-০৩-২০২২) উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও উপজেলা নির্বাহি অফিসার পাপিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় বক্তারা বলেন, ‘বাংলাদেশ মাদক উৎপাদনকারী দেশ নয়, প্রতিবেশী দেশ উৎপাদন করা মাদক আমাদের দেশে প্রবেশ করে। ইয়াবার পর এখন আইস এলএসডি, ডিওবি নানা ধরনের মাদক এখন মাথাব্যথার কারণ।

সভায় মনিগ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, মাদকের কারবার ও সেবন বন্ধ করতে না পারলে আগামী কয়েক বছর পর আমরা একটা অক্ষম জনগোষ্ঠী পাব। তাই মাদক বন্ধে কোনো বিকল্প নেই।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ(বিজিবি)’র আলাইপুর সীমান্ত ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার নায়েক সুবেদার মানিক হোসেন বলেন, তার ফোর্সের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে কম হওয়ায় অনেক সময় নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব হয়না। তাই সকলের সহয়োগিতা কামনা করছি।

বাঘা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল করিম বলেন, আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের কোন ঘাটতি নেই। তবে তথ্য দিয়ে সহয়োগিতার প্রয়োজন।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট লায়েব উদ্দনি লাভলু বলেন, মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে সমন্বিত প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। এছাড়াও সভায় বিষয়ভিত্তিক যে সব আলোচনা হয়েছে, সেসব বিষয়ে নিজেদেও সচেতন হতে হবে,অন্যদেরও সচেতন করতে হবে।

উপজেলা নির্বাহি অফিসার পাপিয়া সুলতানা বলেন, দ্রব্যমূল্য কমিয়ে সহনশীল পর্যায়ে নিয়ে আসতে সরকার নানামুখী উদ্যোগ নিয়েছেন। সেই লক্ষে বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে। সভায় আলোচিত বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা চালিয়ে যাবেন।

অন্যান্যর মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অধ্যক্ষ নছিম উদ্দীন, ইউপি চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ তুফান, অধ্যক্ষ আব্দুল হামিদ, বাঘা প্রেস ক্লাবের সভাপতি আব্দুল লতিফ মিঞা,সাধারন সম্পাদক নুরুজ্জামান প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান মোকাদ্দেস সরকার,রিজিয়া আজিজ সরকার,ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমেদ রনজুসহ উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

স্ব.বা/বা

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *