তানোরে পরকীয়ার জেরে হাফেজের আত্নহত্যা

রাজশাহী শিক্ষা

তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে পরকীয়ার জেরে হাফেজ ও কওমি মাদ্রাসা পড়ুয়া রবিউল ইসলাম রুবেল হোসেন নামে এক শিক্ষার্থী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে নিশ্চিত করেন মুন্ডুমালা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আইসি মাসুদ রানা। বৃহস্পতিবার ভোরে নিজ ঘরে উপজেলার প্রকাশনগর টকটকিয়া হঠাৎ পাড়া গ্রামে ঘটে এমন চাঞ্চল্যকর আত্মহত্যার ঘটনাটি। এঘটনার পর তালাক প্রাপ্ত মহিলা বাচার জন্য বৃহস্পতিবার সকালের দিকে বিষপান করেন। সে এখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এমন ঘটনায় এলাকায় দেখা দিয়েছে ব্যাপক চাঞ্চল্যকর অবস্থা, সেই সাথে হাফেজ পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। খবর পেয়ে মুন্ডুমালা পুলিশ ফাঁড়ির কর্মকর্তা রা লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত ছাড়াই দাফনের অনুমতি দিয়েছেন।

জানা গেছে, উপজেলার মুন্ডুমালা পৌর এলাকার প্রকাশনগর টকটকিয়া হঠাৎ পাড়া গ্রামের শাজাহান আলীর পুত্র হাফেজ ও কওমি মাদ্রাসা পড়ুয়া শিক্ষার্থী রুবেল হোসেনের সাথে দীর্ঘদিন ধরে ওই গ্রামের জৈনক ব্যাক্তির মেয়ে তাকে পছন্দ করতেন। ওই মেয়ের বিয়ে হওয়ার পর তালাক নেন। এঅবস্হায় হাফেজ রুবেলকে বাড়িতে দেখে বুধবার গভীর রাতে রুবেলের ঘরে প্রবেশ করে দরজা খিল বন্ধ করে দেন। লজ্জায় হাফেজ রুবেল নিজের ঘর থেকে বিভিন্ন কায়দায় বের হয়ে পার্শ্ববর্তী আরেকটি ঘরে গলায় ফাঁস দেন। ফজরের নামাজের জন্য ডাকাডাকি করলে রুবেলের ঘরে থেকে মেয়ে কে পায় আর পাশের ঘরে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় মরে আছে রুবেল। পরিবারের লোকজন মুন্ডুমালা পুলিশ কেন্দ্রে খবর দিলে ঘটনাস্থলে গিয়ে ঝুলন্ত লাশ নামান। এদিকে ওই তালাকপ্রাপ্ত মহিলাও বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। তবে সে এখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা ধীন রয়েছেন।

থানার ওসি কামরুজ্জামান মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মুন্ডুমালা পুলিশ ফাঁড়িতে যোগাযোগের পরামর্শ দেন।

মুন্ডুমালা পুলিশ ফাঁড়ির আইসি মাসুদ রানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান এটার দায়িত্বে আছেন এসআই রবিউল ইসলাম। তিনি জানান লাশ উদ্ধার করে দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আত্মহত্যার ঘটনা ময়নাতদন্ত ছাড়াই কিভাবে দাফনের অনুমতি দেওয়া যায় জানতে চাইলে তিনি জানান গ্রামবাসী এবং সার্কেল এসপি স্যার ছিলেন।

সার্কেল এসপি আসাদুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান আত্মহত্যা হলেই ময়নাতদন্ত করতে হবে কে বলেছে। রাস্তায় দূর্ঘটনায় মারা গেলে ময়না তদন্ত হয় কেন জানতে চাইলে এড়িয়ে গিয়ে জানান ইউডি মামলা করা হয়েছে তদন্ত করা হবে।

 

 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *