চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ২২ গরু-ছাগল নিয়ে ঢাকার পথে ক্যাটল ট্রেন

রাজশাহী লীড

স্বদেশ বাণী ডেস্ক: গত বছরের ন্যায় এবারও কোরবানির পশু পরিবহনের জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ-রাজশাহী-ঢাকা রুটে চালু হয়েছে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন সার্ভিস। বুধবার (৬ জুলাই) বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশন থেকে ১৮টি গরু ও চারটি ছাগল নিয়ে ট্রেনটি রাজধানী ঢাকার তেজগাঁও রেলস্টেশনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। আগামী শুক্রবার (৮ জুলাই) পর্যন্ত এই বিশেষ ট্রেনটি চলবে।

প্রথম দিনে একটি ওয়াগনে ১৮টি গরু ও চারটি ছাগল নিয়ে যাত্রা শুরু করে ক্যাটল ট্রেনটি। সবগুলো গরুর মালিক সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের শামিম আলী। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোস্তাফিজুর রহমান, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের সহকারী বাণিজ্য কর্মকর্তা একেএম নুরুল আলম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশনের স্টেশন মাস্টার শহিদুল আলম প্রমুখ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশন সূত্রে জানা যায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনে প্রতিটি গরু পরিবহনের জন্য ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৯১ টাকা। ২০২১ সালে প্রথমবারের মতো ক্যাটল ট্রেনে পণ্যবাহী ওয়াগন দিয়ে ঢাকায় গরু পরিবহন করা হয়। প্রতিটি ওয়াগনে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ১১ হাজার ৮৩০ টাকা।

প্রথমবারের মতো চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ২০২১ সালের ১৭ জুলাই ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন চালু হয়। ট্রেনটি ১৯ জুলাই পর্যন্ত গরু পরিবহন করে। ৩ দিন ধরে চলা এ ট্রেনটিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে কোরবানিযোগ্য পশু পরিবহন করা হয় ৭৭টি। তা থেকে আয় হয় ৪৫ হাজার ৫৮৪ টাকা। তবে আয় নয়, মূলত খামারিদের ভোগান্তি ও ব্যয় কমাতে সরকার এই ট্রেন চালু করেছে বলে জানান রেলওয়ের কর্মকর্তারা। গত বছর উদ্বোধনের দিনে ৭৭টি গরু পরিবহন করলেও পরের দুই দিনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে কোনো গরু পরিবহন হয়নি ট্রেনটিতে।

গরুর মালিক শামিম আলী বলেন, গত বছরও ক্যাটল ট্রেনে আমি গরু পাঠিয়েছিলাম। এরই ধারাবাহিকতায় এবারও প্রথম দিনেই গরু পাঠাচ্ছি। আজকে আমার গরু ছাড়া আর কারও গরু নেই। এই ট্রেনের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো ভাড়া অন্যান্য উপায়ে পরিবহনের তুলনায় অর্ধেক। তবে তেজগাঁও রেলস্টেশনে নামার পর হাটে গরু নিয়ে যেতে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়। তাই সেখানে সরকারিভাবে গাড়ির ব্যবস্থার দাবি জানান তিনি।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার শহিদুল আলম বলেন, কোরবানির ঈদের আগে ট্রাকে করে গরু পরিবহন করে ঢাকা যেতে প্রায় ২৪ থেকে ৩০ ঘণ্টা সময় লাগে। ক্যাটল ট্রেনে সময় লাগবে মাত্র ১২ ঘণ্টা। এছাড়াও ট্রাক থেকে গরুগুলো নামাতে কষ্ট হয়। ট্রেনে সহজেই উঠানো-নামানো যায়। নির্ধারিত সময়ে ট্রেনগুলো ঢাকায় পৌঁছাবে। যানজটের কোনো সমস্যা থাকবে না। পশুভর্তি ট্রেনটি রাতে চলাচল করবে, ফলে তীব্র গরমে পশুগুলো অসুস্থ হয়ে পড়বে না। পশুর সঙ্গে পরিচর্যাকারী একই ওয়াগনে ভ্রমণ করতে পারবেন সেই ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, প্রতিটি ওয়াগনে ২০টি করে গরু পরিবহন করা যাবে। রাত আড়াইটা থেকে পৌনে ৪টার মধ্যে ট্রেনটি ঢাকার তেজগাঁওয়ে পৌঁছাবে। ট্রেনটি আবারও ভোর ৫টার দিকে তেজগাঁও থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের উদ্দেশে রওনা দেবে। পশু পরিবহনে কাভার্ড ওয়াগনগুলোতে বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা থাকবে। যেখানে রোদ-বৃষ্টি প্রবেশের সুযোগ নেই। ফলে পশুগুলো অসুস্থ হওয়ার কোনো ভয় নেই।

রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশন থেকে ক্যাটল ট্রেনটি বুধবার (৬ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৪টায় ছেড়ে কাঁকনহাট, রাজশাহী স্টেশন হয়ে চাটমোহর, উল্লাপাড়া, বঙ্গবন্ধু সেতু (পশ্চিম) জয়দেবপুর, টঙ্গি হয়ে তেজগাঁও পৌঁছাবে।

স্ব.বা/বা

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.