৩২ মিনিটেই রোনাল্ডোর হ্যাটট্রিক

খেলাধুলা

স্বদেশবাণী ডেস্ক:  উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে নিষ্প্রভ ছিলেন পর্তুগিজ তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। দ্বিতীয় রাউন্ড পার করতে পারেনি তার দল জুভেন্টাস।

এই ব্যর্থতার দায়ের পুরোটাই পড়ে রোনাল্ডোর ঘাড়ে। এ নিয়ে শুরু হয় নানা সমালোচনা ও তীর্যকবাক্য। এমনকি বার্সার একজন সাধারণ মানের ডিফেন্ডারের সমান দামে তাকে বিক্রি করে দেয়ার গুঞ্জনও ওঠে।

এই পরিস্থিতিতে রোববার রাতে রোনাল্ডো এমন নৈপূণ্যই দেখালেন যে, সব সমালোচকের মুখ ছাইচাপা দিয়েছেন।

পারফেক্ট হ্যাটট্রিক করে গুঞ্জনকে স্রেফ তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিলেন বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলার।

রোববার চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বিদায়ের পর কালিয়ারির বিপক্ষে ছিল জুভেন্টাসের প্রথম ম্যাচ।

আর প্রথম ম্যাচে মাত্র ৩২ মিনিটের মধ্যে হ্যাটট্রিক করেন রোনাল্ডো।  তার হ্যাটট্রিকে ৩-১ গোলের ব্যবধানে কালিয়ারিকে হারায় জুভেন্টাস।

সিআরসেভেনের এই হ্যাটট্রিককে ফুটবলের ভাষায় পারফেক্ট হ্যাটট্রিক বলা হয়।

তিনটি গোলের প্রথমটি নিখুঁত হেডে, পরেরটি ডান পা দিয়ে এবং তৃতীয় গোলটি বাঁ পায়ে করেছেন রোনাল্ডো।  যে কারণে এমন হ্যাটট্রিককে পারফেক্ট হ্যাটট্রিক বলা হয়।

ক্যারিয়ারের নবম পারফেক্ট হ্যাটট্রিক করলেন ফুটবলের পর্তুগিজ যুবরাজ। আর সবমিলিয়ে এটি ৫৭তম হ্যাটট্রিক তার।

ম্যাচের মাত্র ১০ মিনিটের সময় হেডে প্রথম গোলটি করেন রোনাল্ডো। সতীর্থ হুয়ান কুয়াড্রাদোর দারুণ কর্নারে সবাইকে ছাড়িয়ে লাফিয়ে উঠে করা হেডে জালের ঠিকানা খুঁজে নেন তিনি।

ওই গোলের ১৫ মিনিট পর তাকে ফাউল করেন ক্যালিয়ারির গোলরক্ষক অ্যালেসিও ক্রাগনো।পেনাল্টি পায় জুভেন্টাস। স্পটকিক থেকে ডান পায়ের শটে জাল কাঁপান রোনাল্ডো।

সেই গোলের মিনিট সাতেক পর পারফেক্ট হ্যাটট্রিক পূরণ করেন রোনাল্ডো, যা ছিল দৃষ্টিনন্দন।

পাল্টা আক্রমণে বা দিক থেকে ফেডরিখ চিয়েসার পাস পেয়ে বাম পায়ের কোনাকুনি শটে ক্যালিয়ারির জালে তৃতীয়বারের মতো বল জড়িয়ে দেন রোনাল্ডো।

এ নিয়ে চলতি লিগে রোনাল্পোর গোলসংখ্যা দাঁড়াল ২৩-এ।

৩-০ গোলের ব্যবধানে বিরতিতে যায় দুই দল।

ধারণা হচ্ছিল আজ গোলের বন্যা বইয়ে দেবে জুভেন্টাস।  কিন্তু সেই ধারণা ভুল প্রমাণিত করে দ্বিতীয়ার্ধে একটি গোলও করতে পারেনি আন্দ্রে পিরলোর শিষ্যরা।

উল্টো একটি গোল হজম করে বসে।  ম্যাচের ৬১ মিনিটের সময় জুভেন্টাসের জালে বল জড়ান কোচ ডিয়েগোর সিমিওনের ছেলে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড জিওভানি সিমিওনে।

রেফারির শেষ বাঁশিতে  ৩-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে জুভেন্টাস।

এ জয়ের পরে ২৬ ম্যাচে ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে রয়েছে তুরিনের বুড়োরা। শীর্ষে থাকা ইন্টার মিলানের সংগ্রহ ২৭ ম্যাচে ৬৫ পয়েন্ট। সমান ম্যাচে এসি মিলান ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে অবস্থান করছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *