শাকিরার পর আরও এক বিচ্ছেদ বার্সা ফুটবলার পিকের

খেলাধুলা

স্বদেশ বাণী ডেস্ক: সময় খারাপ হলে বিপদ কিংবা সঙ্কট সবগুলোর যেন একসঙ্গেই আগমণ ঘটে। বার্সেলোনা ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকের হয়েছে ঠিক এই অবস্থা। দীর্ঘদিনের বান্ধবী, কলম্বিয়ান পপ গায়িকা শাকিরার সঙ্গে বিচ্ছেদের পর আরও একটি বিচ্ছেদের অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে হচ্ছে তাকে।

তার দীর্ঘদিনের ক্লাব বার্সেলোনাও বিচ্ছেদ ঘটিয়ে দিলো জেরার্ড পিকের সঙ্গে। বার্সা কোচ জাভি হার্নান্দেজ জানিয়ে দিয়েছেন, আগামী মৌসুমে তার পরিকল্পনায় নেই পিকে। সুতরাং, বার্সা ছাড়তে হবে এই ডিফেন্ডারকে।তবে শাকিরার সঙ্গে যেদিন বিচ্ছেদ হয়েছিল, তার আগেরদিনই বার্সা কোচের পক্ষ থেকে ন্যু ক্যাম্প ছাড়ার বার্তাটা পেয়ে গিয়েছিলেন পিকে। বার্সা এখন আশা করছে, পিকের সঙ্গে তাদের বিচ্ছেদটা শান্তিপূর্ণই হবে।

স্প্যানিশ পত্রিকা স্পোর্ট রিপোর্ট প্রকাশ করেছে যে, ‘দুই সপ্তাহ আগেই পিকের সঙ্গে মিটিং করেছেন কোচ জাভি। সেখানেই পিকেকে জানিয়ে দিয়েছেন যে, আগামী মৌসুমে তিনি তার (জাভির) পরিকল্পনায় নেই। কোচ মূলত তার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ৩৫ বছর বয়সী পিকের শারীরিক সমস্যা এবং মাঠের বাইরে নানারকম অপেশাদার আচরণের কারণে।’জাভির জন্য এই বৈঠকটা ছিল খুবই কঠিন। কারণ, জাভি সরাসরি কথা বলেছেন দলের অধিনায়কের (বুস্কেটস) সঙ্গে। পিকের ফুটবল প্রতিভা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই কোচের, যে প্রতিভাটা কোনোভাবেই এড়ানো যায় না। কিন্তু বর্তমান সময়ে এসে শারীরিকভাবে পিকের সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বিশেষ করে আরো একটি মৌসুম সামনে রেখে, এ প্রশ্নটা বড় হয়েই দেখা দিয়েছে। একই সঙ্গে মাঠের বাইরে পিকের নানারকম অপেশাদার আচরণ, কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না কোচ জাভি।

১৯৯৭ সালে বার্সেলোনা অ্যাকাডেমি লা মাসিয়ায় এসেছিলেন ১০ বছরের পিকে। মাঝে ২০০৪ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে খেলেছেন। এছাড়া পুরো ফুটবল ক্যারিয়ার পিকে কাটিয়েছেন বার্সেলোনাতেই। সেই পিকের বিরুদ্ধেই জাভির অভিযোগ, ‘মাঠে তার ভূমিকা অপেশাদার। শারীরিক সক্ষমতাও ক্রমশ কমছে। মাঠের বাইরে অন্য বিষয়েই এখন বেশি আগ্রহ ৩৫ বছরের এই সেন্ট্রাল ডিফেন্ডারের।’

২০২৪ সাল পর্যন্ত পিকের সঙ্গে চুক্তি রয়েছে বার্সেলোনার। এক সময় বার্সার প্রথম একাদশে জাভির সঙ্গে খেলেছেন পিকে। সাবেক সতীর্থের মুখে এমন কথা শুনে প্রাথমিক ধাক্কা খান পিকে। স্পেনের সব বয়সভিত্তিক দলের হয়ে আন্তর্জাতিক মঞ্চে খেলা পিকে অবশ্য ক্লাব ছাড়া নিয়ে কিছু জানাননি।

জাভির মতামত জানার পর বার্সেলোনাও তাকে রাখতে রাজি নয়। মাঝপথে চুক্তি ভঙ্গ করলে পিকে-কে বিশাল অঙ্কের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে বার্সেলোনাকে। যদিও ক্লাব কর্তৃপক্ষের আশা, দীর্ঘ সম্পর্কের অবসান হবে শান্তিপূর্ণভাবে। পিকে কোনো অন্যায় দাবি করবেন না। অনেক কম মূল্যেই সমঝোতা হবে।

স্পোর্ট-এর রিপোর্ট মতে, পিকে অবশ্য বলে দিয়েছেন, তিনি বার্সা ছেড়ে যেতে চান না এবং জাভির যুক্তিগুলো খন্ডানোর চেষ্টা করবেন তিনি। শুধু তাই নয়, শারীরিক সক্ষমতার যে প্রশ্ন তোলা হয়েছে, সেটা কাটিয়ে উঠতে তিনি আগের চেয়ে আরও বেশি অনুশীলন করবেন এবং নিজেকে আরও বেশি ফিট করে তুলবেন। এমনকি মাঠের বাইরে অন্যান্য যে সব প্রতিশ্রুতিগুলো রয়েছে, সেগুলোকেও ‘না’ করে দেবেন।

যদিও জাভি চাচ্ছেন, একটি শক্তিশালী দল তৈরি করার জন্য তিনি সেন্ট্রাল ডিফেন্সে অন্য কাউকে চান। এ ভূমিকায় আর তিনি পিকেকে চান না। তিনি এমন কাউকে চান, যিনি তাকে অনেক বেশি সময় দিতে পারবেন।যদিও পুরো বিষয়টা এখন নির্ভর করছে বার্সার স্পোর্টিং ডিরেক্টর মাতেও অ্যালেমানি’র ওপর। তিনি কী সিদ্ধান্ত নেন, সেটার ওপরই নির্ভর করছে বার্সায় পিকের ভবিষ্যত।

স্ব.বা/ রু

 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *