বাঘায় প্রতিবন্ধী ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে অবশেষে ৩ যুবক কারাগারে

রাজশাহী

বাঘা প্রতিনিধি :
রাজশাহীর বাঘায় বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল ছাত্রীকে চার যুবক মিলে ধর্ষনের অভিযোগে দায়েরকরা মামলার প্রধান আসামীকে অদ্যাবধি গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। উপরোন্ত জামিন নিতে গিয়ে তিনজন হাজতে আটকে পড়ায় উল্টো বাদীকে প্রান নাশের হুমকি দিচ্ছে আসামী পক্ষ।

অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলা সদরে অবস্থিত বুদ্ধি ও অটিস্টিক প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের হাসি নামের ছাত্রী (১৩) বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে বাঘার ঐতিহাসিক দিঘীর পশ্চিম পাড় থেকে উত্তর মিলিক বাঘা গ্রামের আজাহারের ছেলে মিঠু ও আফাং এর ছেলে মাহফুজ মোটর সাইকেলে তুলে নিয়ে চকছাতারি গ্রামের রানার এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে যোগ দেয় রানা সহ উত্তর মিলিক বাঘা গ্রামের মতিউরের ছেলে সাইফুল। পরে কৌশলে ঔষধ খাইয়ে অচেতন করার পর একটি ফাঁকা টিনসেট ঘরে তাকে চার বন্ধু মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। ভ্যানে বাড়িতে পাঠানোর আগে পায়ে কাটা মেরে চেতন করে ছাত্রীর বাড়িতে পাঠানো হয়। ঘটনাটি ঘটে গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের ৩ তারিখে।

এ ঘটনায় চারজনকে অভিযুক্ত করে বাঘা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ওই ছাত্রীর মা। কিন্তু মামলাটি রেকর্ড না করে আদালতে মামলা করার পরমর্শ দেয় পুলিশ। গত বছরের ১৩ মার্চ নারি ও শিশু নির্যাতন দমন(২) আদালতে মামলাটি দায়ের করেন প্রতিবন্ধী ছাত্রীর মা রুপালি বেগম। বাদি পক্ষের কৌশলি এ্যাডেভোকেটশাহীন কবির প্রতিবেদককে জানান, চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি জামিন নিতে গিয়ে এ মামলার তিন আসামীর জামিন না মঞ্জুর করেন মাহামান্য আদালত। মামলার বাদি জানান,এরপর থেকে মামলার প্রধান আসামী সাইফুলসহ আটককৃত আসামীর সহ এ মামলার ও তার লোকজন মামলা তুলে নেয়ার জন্য তাঁকে ভয় ভিতি দেখাচ্ছে।

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মহাসীন আলী জানান, পলাতক আসামীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তবে ভয়-ভিতি দেখিয়ে কোন লাভ নেই। শাস্তি তাদের পেতেই হবে। যদি বেশি বাড়া-বাড়ি করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ফের মামলা দিয়ে প্রয়োজনে প্রসিকিউশন দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.