বাঘায় মাষ কলাই চাষে এবার বাম্পার ফলনের আশা কৃষকের

কৃষি লীড

বাঘা প্রতিনিধি:
কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় মাষ কলাই চাষে ফিরেছেন কৃষকরা। বিশেষ করে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার চরবেষ্টিত এলাকায় এবার মাস কলাই চাষ বেশি হয়েছে। আগে উপজেলার পদ্মার চরাঞ্চলের অধিকাংশ জমিতে মাষ কলাইয়ের ব্যাপক চাষ হতো। কৃষকরা দেশি বা স্থানীয় জাতের মাষ কলাই চাষ করতেন। এ জাতে ভাইরাসজনিত রোগের কারণে ফলন হতো কম। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হতেন কৃষকরা। এ কারণে মাষ কালইয়ের চাষ কমতে থাকে। এবার বীজ ও সার সরবরাহ করায় আবারো মাষ কলাই চাষে ফিরে আসেন কৃষকরা। চলতি মৌসুমে উপজেলায় বারি-৩ জাতের মাষ কলাই চাষ করে ভালো ফলনের আশা করছেন কৃষকরা ।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, বাঘায় চলতি মৌসুমে ৩ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে মাষ কলাইয়ের চাষ হয়েছে। কম খরচে, দেশি জাতের চেয়ে বারি-৩ জাতের মাষ কলাইয়ে দ্বিগুণেরও বেশি ফলন আশা করা হচ্ছে। গাছে রোগ-বালাইও হয়নি। এ কারণে খুশি কৃষকরা। তারা আগামীতে আরো বেশি জমিতে বারি-৩ জাতের মাষ কালাই চাষের কথা ভাবছেন।

কৃষক বুলু জানান, কৃষি অফিসের পরামর্শে দেড় বিঘা জমিতে বারি-৩ জাতের মাষ কলাই চাষ করেছি। আবহাওয়া অনুকুলে ধাকায় খুব ভালো হয়েছে। আশা করছি বিঘা প্রতি ৬/৭ মন ফলন পাবো। এই লাভজনক মাষ কলাই চাষ এলাকার কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। এইবার বুলুসহ অনেক কৃষকই জমিতে মাষ কলাই চাষ করেছেন।

কৃষি কর্মকর্তা সাবিনা বেগম জানান, বাড়তি ফসল হিসেবে মুগ কলাই চাষে কৃষকদের ব্যাপক সাড়া মিলেছে। যেখানে বোরো ধান চাষ করে কৃষকরা লাভের মুখ দেখতে পারছেনা, সেখানে বারি -৩ জাতের মাষ কলাই চাষ করে ৮/১০ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব। পতিত জমিতে এ জাতের কলাই আবাদ করলে অধিক লাভবান হবে কৃষকরা। আগামীতে সারা উপজেলায় ছড়িয়ে দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হবে। এ জাতের মাষ কলাই চাষে কৃষকদেরও প্রয়োজনীয় সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.