মোহনপুরে এমপির ইশারায় দোকানঘর উচ্ছেদ করে মিশুক সিএনজি স্ট্যান্ড নির্মাণ

রাজশাহী

তানোর প্রতিনিধি : রাজশাহীর মোহনপুরে এমপি আয়েন উদ্দিনের নির্দেশে অবৈধ মিশুক সিএনজির স্ট্যান্ড গড়ে তোলার জন্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের দোকান ঘর ভাংচুর করে উচ্ছেদ করার ঘটনা ঘটেছে। এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে, রাজশাহী নওগাঁ মহাসড়কের সইপাড়া মোড়ে।

এতে করে এমপি আয়েন উদ্দিন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দস সালাম এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানওয়ার হোসেনের এমন জঘন্য কান্ডে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোনো সময় দোকান ব্যবসায়ীরা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচীও পালন করতে পারেন বলেও একাধিক ব্যবসায়ীরা হুশিয়ারী দিয়ে জানান।

এছাড়াও ব্যবসায়ীরা দোকান ঘর ও বসত বাড়ী রক্ষার জন্য গণস্বাক্ষর করে চলতি মাসের(১৯ জুন)রোববার রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত আবেদন জানান। কিন্তু আবেদনের পরের দিনই (২০জুন) সোমবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও সরেজমিনে উপস্থিত থেকে এসব ক্ষুদ্র ব্যবয়াসীদের দোকান ঘর ও বাড়ি উচ্ছেদ করে অবৈধ মিশুক স্ট্যান্ড তৈরি করার হুকুম দেন বলেও ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কের সইপাড়া মোড়ে প্রয়োজন না থাকলেও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুস সালামের কথিত এপিএস হুমায়ন কবির ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে ও উপজেলা প্রশাসনকে প্রভাবিত করে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী (এডিপি) প্রকল্পের আওতায় কয়েক লক্ষাধিক টাকার বরাদ্দ নিয়ে উল্লেখিত স্থানের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের দোকান ঘর উচ্ছেদ করে সেখানে অবৈধ মিশুক স্ট্যান্ড গড়ে তোলার চেষ্টা করছেন। সেজন্য সইপাড়া মোড়ের রাস্তার সাইডে অবস্থিত হত-দরিদ্র ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের একমাত্র আয়ের উৎস প্রায় ১৫ টি দোকান ঘর উচ্ছেদ করা হয়েছে। ফলে পরিবার পরিজন নিয়ে চরম মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে দোকান ব্যবসায়ীদের। এমপি আয়েন উদ্দিনের বিরুদ্ধে রয়েছে ভরি ভরি অভিযোগ। তিনি তুলশীক্ষেত্র নামক মাইলার বিলে অনেক কৃষকের জমি জোর করে কৃষকে না বলে রাতারাতি ডেজার (ভেকু) গাড়ি দিয়ে কেটে করেছেন বিশাল দীঘি। আবার দীঘির পাড়ে সরকারি বাঁধের জয়গা দখল করে গড়ে তুলেছেন বিলাসীবহল রাজমহল। যা সকলের কাছে জলসাঘর নামে পরিচিত। আর সেই দীঘির পাড়ে জলসাঘরে বসে থেকে চলে অপকর্মের সকল ষড়যন্ত্রনা।

দোকান ঘর উচ্ছেদ হওয়া ভোক্তভোগীরা জানান,এখানে মিশুক সিএনজির স্ট্যান্ড বাস্তবায়নের কোন প্রয়োজন না থাকলেও এমপি আয়েন উদ্দিনের তুলশীক্ষেত্রে অবস্থিত এমপির “জলসা ঘর” নামে খ্যাত স্পটে যাতায়াতের সুবিধার্থে শুধু ক্ষমতার অপব্যহার করে সরকারি অর্থ বরাদ্দ নিয়ে জোরপূর্বক অবৈধ মিশুক সিএনজির স্ট্যান্ড করার চেষ্টা করছেন। তিনি সরকারের অর্থ বেআইনি ভাবে অপচয় করে অবৈধ মিশুক সিএনজির স্ট্যান্ড গড়ে তুলতে গিয়ে অসহায় দরিদ্র গরীব-দুঃখী মানুষের পেটে লাথি মারছে। অথচ রহস্য জনক কারণে এমপির ভয়ে নিরব ভূমিকায় রয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

সইপাড়া মোড়ের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মাহাবুর রহমান জানান, এখানে মিশুক স্ট্যান্ডের কোন প্রয়োজন নেই। অথচ এমপি ও উপজেলা পরিষদ এর চেয়ারম্যান তাদের তুলশীক্ষেত্রে অবস্থিত ওয়াটার পার্কে দর্শনার্থীদের যাওয়ার সূবিধার্থে আমাদের মত অসহায় মানুষের পেটে লাঠি মেরে মিশুক স্ট্যান্ড নির্মাণ করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

ভেঙ্গে ফেলা বাড়ীর মালিক আফজাল হোসেন জানান, ওই স্থানে মাটি ভরাট হলে মোড়ের পার্শ্ববর্তী পাড়ার পানি নিষ্কাশনের জন্য সদ্য নির্মিত দুটি বক্স কালভার্ট ভরাট করা হলে পানি নিষ্কাশনের পথ গুলো বন্ধ হয়ে যাবে। সেজন্য দ্রুত অবৈধ মিশুক সিএনজির স্ট্যান্ড বন্ধ করে অসহায় দরিদ্র ব্যবসায়ীদের দোকান ঘর নির্মাণ করে দেয়ার জন্য জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে আহবান জানান উচ্ছেদকৃত ক্ষুদ্র দোকানীরা।

বিষয়টি নিয়ে মোহনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও সানওয়ার হোসেনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

 

 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *