ঝন্টুর কাছে টাকা পান দীঘি

বিনোদন

স্বদেশবাণী ডেস্ক: পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু পরিচালিত ‘তুমি আছো তুমি নেই’ ছবি নিয়ে বেশ জল ঘোলাটে হয়েছে।এই ছবিটি নিয়ে অভিনেত্রী প্রার্থনা ফারদিন দীঘিসহ তার বাবা ও মামার বিরুদ্ধে কোটি টাকার মানহানির মামলা করেছেন বলেও গুঞ্জন ছড়িয়েছেন নির্মাতা।

যে সিনেমা নিয়ে এত আলোচনা-সমালোচনা অথচ সিনেমায় কাজ বাবদ দীঘির পারিশ্রমিক এখনো পুরোপুরি পরিশোধ করেননি নির্মাতা দেলোয়ার জাহান ঝন্টু।

একাধিক গণমাধ্যমকে বিষয়টি জানিয়েছেন দীঘির বাবা সুব্রত চক্রবর্তী। তার কথায়, কাল ছবিটি মুক্তি পাবে অথচ এখনো পুরো পারিশ্রমিক পরিশোধ করেননি। ঝন্টু ভাইয়ের মতো একজন অভিজ্ঞ লোক যে আচরণ করছেন তা কাম্য নয়।

তিনি আরো বলেন, তিনি (ঝন্টু) সিনিয়র নির্মাতা। তার কথায় সব করেছি। ডাবিং শেষ করেও পারিশ্রমিক এখনো পরিশোধ হয়নি। আজকে না কালকে, এ রকম অনেক হয়েছে। তবুও মেনে নিয়েছি। শুধু আমার মেয়ে না, আমি নিজেও ক্যারিয়ারে প্রথমবার ঝন্টু ভাইয়ের নির্দেশনায় কাজ করলাম।

এদিকে দীঘির পুরো পারিশ্রমিক পরিশোধ না করার বিষয়টি স্বীকার করে ‘তুমি আছো তুমি নেই’ সিনেমার প্রযোজক সিমি ইসলাম কলি বলেন, দীঘির পারিশ্রমিক এক লাখ টাকা বাকি আছে। কিন্তু তার সঙ্গে চুক্তি হয়েছিল কাজ শেষ হবে, তারপর পাওনা টাকা সে নিয়ে যাবে। একদিনের শুটিং বাকি ছিল, একটা গানের কিছু অংশ শুট করার কথা ছিল। কিন্তু দীঘি কথামতো সেই সময় দেয়নি।

এদিকে মামলার বিষয়ে দীঘির বাবা বলেন, আমি মনে করি সিনেমাটি নিয়ে প্রচারের কৌশল হিসেবেই এগুলো করছেন দেলোয়ার জাহান ঝন্টু এবং ‘তুমি আছো তুমি নেই’ সিনেমার প্রযোজক সিমি ইসলাম কলি। তার মতো (ঝন্টু) একজন লোক কেন এ ধরনের কথা বলবেন সেটাই আমি বুঝি না! মামলা করার মতো এখানে কি ঘটল? একটা মেয়ে যদি বলে, তার কাজটি ভালো হয়নি। আমি তো মনে করি, সে এ কথা বলে সাহস দেখিয়েছে। এখনো মামলার কিছুই হাতে পাইনি। কাগজপত্র হাতে পেলেই আমরা সিদ্ধান্ত নেব। এরই মধ্যে নির্মাতা ও প্রযোজকের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছি।

‘তুমি আছো তুমি নেই’ সিনেমার ট্রেইলার প্রকাশ্যে আসতেই সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। মানহীন গল্প ও নির্মাণের অদক্ষতার অভিযোগ তুলে মন্তব্য করেন নেটিজেনরা। এতে বিব্রত হয়ে দীঘি এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘ছবিটি বেশ মানহীন। সিনেমাটি চলবে না।’ তার এমন মন্তব্যের জেরে বেজায় চটে যান ছবির নির্মাতা দেলোয়ার জাহান ঝন্টু।

এদিকে ছবিটির অভিনেতা দীঘির কোনো দোষ দেখছেন না। তিনি বলেন, দীঘি তো ছবির বিরুদ্ধে কিছু বলেনি। সে একজন গুণী অভিনেত্রী।

সিনেমার ট্রেলারের সমালোচনা নিয়ে আসিফ বলেন, ২ মিনিটের ট্রেইলারে অনেক কিছু বোঝা যায় না, একজন অভিনেতা অভিনেত্রী কেন ওই এক্সপ্রেশান বা ডায়লগ টা দিল, এটা আপনি পুরো সিনেমা না দেখলে বুঝতে পারবেন না।

তরুণ এই অভিনেতা বলেন, আপনাদের কাছে কালার-কারেকশান আর পোসটার ভালো না লাগার কারণে কোনো কিছুই হয়তো ভালো লাগছে না। আপনাদের এতটুকু বলতে পারি, এই সিনেমাটি দেখলে আপনারা নিরাশ হবেন না আশা করি।  এবার একটু দৃস্টিপাত করা যাক আমাদের অভিনয় ও পারফরমেন্স এর উপর, আমার প্রথম সিনেমা “দবির সাহেবের সংসার” এ আমার অভিনয় ও “আইতে দেখি যাইতে দেখি” গানে আমার পারফরমেন্স দেখে আপনারা কতটা মজা পেয়েছেন, তা কিন্তু এখনো আপনারা প্রতিনিয়ত অনেকেই বলে থাকেন।

দীঘির প্রশংসায় পঞ্চমুখ আসিফ বলেন, আর যেই দীঘির রক্তে বয়ে চলেছে অভিনয়, ওর কথা আর কিইবা বলবো, ছোট থাকতেই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার আয়ত্ত্ব করেছে ৩ বার। শুধু কি তাই? তুমুল আলোচিত আন্তর্জাতিক  সিনেমা “বঙ্গবন্ধু” তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মায়ের চরিত্রের বড় একটি রোল প্লে করছে কিংবদন্তি পরিচালক শ্যাম ব্যানেগালের পরিচালনায়।

তিনি বলেন, কিছু মনে করবেন না, এই কথাগুলো বলার কারণ হলো আমরা এতটুকু জানি যে কথায় কতটুকু ডেলিভারি দিতে হবে। নতুন হিসেবে এদিক ওদিক একটু হতে পারে, কিন্তু আবারো বলছি, আমাদের অভিনয় আশা রাখি আপনাদের নিরাশ করবেনা। আমাদের প্রতি দোয়া ও ভালোবাসা নিয়ে সিনেমাটি ১২ই মার্চ শুক্রবার হল এ গিয়ে পরিবার নিয়ে দেখে নিবেন।

এই সিনেমার মাধ্যমে নায়িকা হিসেবে অভিষেক হচ্ছে একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত শিশুশিল্পী প্রার্থনা ফারদীন দীঘির।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *