বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে রাসিকের উদ্যোগে আলোচনা সভা, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

রাজশাহী লীড

স্টাফ রিপোর্টারঃ  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের আয়োজনে আলোচনা সভা, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় নগরভবনের গ্রিন প্লাজায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাসিক মেয়র বলেন, বঙ্গবন্ধু অত্যন্ত মানবদরদী ও অধিকার আদায়ে আপোসহীন ছিলেন। বাঙালির মুক্তি ও অধিকার আদায়ের প্রতিটি গণতান্ত্রিক ও স্বাধীকার আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন তিনি। এ জন্য তাঁকে বহুবার কারাবরণ করতে হয়েছে। তবুও বাঙালির অধিকারের প্রশ্নে তিনি কখনো শাসকগোষ্ঠীর সাথে আপোস করেননি। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে বিশাল জনসমুদ্রের সামনে ঐতিহাসিক ভাষণ প্রদান করেন। ঐতিহাসিক ভাষণটি ছিল বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ। ২৬ মার্চ ১৯৭১ স্বাধীনতার ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দীর্ঘ নয়মাস সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা অর্জন করি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু তাঁর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার কাজ শুরু করেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমান এবং ৩রা নভেম্বর মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানসহ জাতীয় চার নেতাকে হত্যার মাধ্যমে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে তাঁর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে দেয়নি। তবে এখন আনন্দের বিষয় হচ্ছে বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশরত্ন জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সেই সোনার বাংলা গড়তে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। আমি মনে করি, প্রধানমন্ত্রী যে গতিতে উন্নয়ন অব্যাহত রেখেছেন, তাতে আগামী ২০৪১ সাল নয়, তার অনেক আগেই বিশে^র অন্যতম ধনী দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ।

মেয়র আরো বলেন, রাজশাহীর দৃশ্যমান উন্নয়ন হচ্ছে। রাজশাহীর আলোকায়নের প্রশংসা করছেন সবাই। আগামীতে রাজশাহী আরো আলোকিত হবে, আরো উন্নত হবে। এ কাজে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।

আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. মোঃ হাসিবুল আলম প্রধান। সভায় তিনি বঙ্গবন্ধুর জন্ম, সংগ্রামী ও কর্মময় জীবন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচন করেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক ও অভিন্ন। বঙ্গবন্ধু আজকের দিনে জন্মে ছিলেন বলেই আমরা স্বাধীনতা অর্জন করতে পেরেছি।

আলোচনা সভা উপ-কমিটির আহবায়ক ও রাসিকের ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ কামরুজ্জামানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ সরিফুল ইসলাম বাবু, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন, কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আজমির আহম্মেদ মামুন।

চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় চারটি গ্রুপ ক গ্রুপে সিটি প্রাক প্রাথমিক বিদ্যালয়, খ গ্রুপে ১ম শ্রেণি হতে ৩য় শ্রেণি, গ গ্রুপে ৪র্থ হতে ৭ম শ্রেণি এবং ঘ গ্রুপে ৮ম হতে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত। ক গ্রুপে (রাজশাহী সিটি প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়) প্রথম সাইয়ান রহমান তনয়, দ্বিতীয় মোঃ আল মুহী ৩য় স্থান ইশরা মুর্শেদ, খ গ্রুপ (১ম শ্রেণি হতে ৩য় শ্রেণি) প্রথম আফরিন নোমানী, দ্বিতীয় সায়ন্তনী প্রামানিক, ৩য় মাহিন রহমান, গ গ্রুপে (৪র্থ হতে ৭ম শ্রেণি) প্রথম সৈয়দা মাহমুদা আফরীন, দ্বিতীয় অর্পিতা প্রামানিক নৌশীন, ৩য় নিশাত তাসনীম, ঘ গ্রুপে ৮ম হতে ১০ম শ্রেণি প্রথম নাযীফা রহমান, দ্বিতীয় নামিরা সুলতানা সারা, ৩য় সাদিয়া আফরিন। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছেলে-মেয়েসহ নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় আড়াই শত শিক্ষার্থী এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। অনুষ্ঠানে রাসিকের কাউন্সিলর ও কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান শেষে মনোজ্ঞ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এরপর নগর ভবনে বর্ণিল আতশবাজির আলোকছটায় আলোকিত হয় রাজশাহীর আকাশ।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *