ধানের শীষ ঠেকাতে সবাই এক ‘নৌকায়’

সারাদেশ

স্বদেশবাণী ডেস্ক: বিদ্রোহী হয়ে আ’লীগের একাধিক প্রার্থীর প্রতিদন্ধিতা করার আভাস ছিল মোংলা পোর্ট পৌরসভার নির্বাচনে। তবে দিন শেষে সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে সম্ভাব্য সব প্রার্থী এক নৌকায় উঠেছেন। লক্ষ্য ধানের শীষের প্রার্থীকে ঠেকাতে হবে। কারণ মোংলা পোর্ট পৌরসভায় তুলনামূলক বিএনপি সমর্থিত ভোটার বেশি। বর্তমান পৌর মেয়রও বিএনপির।

এদিকে শনিবার (২০ ডিসেম্বর) মোংলা উপাজেলার নির্বাচন কার্যালয়ে আ’লীগের মনোনীত একক প্রার্থী শেখ আব্দুর রহমান মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন আ’লীগ থেকে মনোনয়ন চাওয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রবীন আ’লীগ নেতা মো. ইদ্রিস আলী, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন এবং পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান জসিম।

এদের মধ্যে কেউ কেউ বিদ্রোহী হয়ে প্রার্থী হওয়ার শক্ত গুঞ্জন ছিল। নিজ নিজ কর্মীর মাঝে মোটা অংকের টাকাও ছড়িয়েছেন। কিন্তু শনিবার দলের প্রার্থীর পক্ষে মনোনয়ন জমা দিতে এসে দেখা গেল ভিন্ন চিত্র। এদিন দলীয় একক প্রার্থী শেখ আব্দুর রহমানের পক্ষে শহরে দফায় দফায় মিছিলও করেছেন সেসব প্রার্থীরা। পরে স্বদল বলে একত্রিত হয়ে দলের প্রার্থীর পক্ষে মনোনয়ন জমা দেন।

আ’লীগের প্রার্থী পৌর আ’লীগের সভাপতি ও একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুর রহমান বলেন, যেহেতু পৌরসভায় বিএনপির ভোট তুলনামূলক বেশি সেক্ষেত্রে দলের সব নেতা কর্মি এক হয়ে নৌকার জয় আনতে কাজ করছে। এটা আমাদের নেতারও (তালুকদার আব্দুল খালেক-মেয়র, খুলনা সিটি কর্পোরেশন) নির্দেশ। তাই সবাই এক হয়ে ধানের শীষের প্রার্থীকে পরজিত করতে মাঠে কাজ করবে বলেও জানান তিনি।

মোংলা পোর্ট পৌরসভার বর্তমান মেয়র পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোঃ জুলফিকার আলী। তিনি এবারও বিএনপির একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়ে জমা দিয়েছেন।

শনিবার (২০ ডিসেম্বর) বাগেরহাট ও মোংলার নির্বাচন কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে দলের মনোনয়ন জমা দেন। তিনি টানা ১০ বছর পৌরসভার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। মামলা সংক্রান্ত জটিলতায় সময়মত নির্বাচন না হওয়ায় দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি মেয়র থেকে যান।

বিএনপি নেতা ও মেয়র মোঃ জুলফিকার আলী জানান, ১০ বছরে তিনি ব্যাপক উন্নয়ন করে পৌরসভাকে পাল্টে দিঢেছেন। সুষ্ঠ নির্বাচন হলে আগামী ১৬ জানুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য পৌর নির্বাচনে তিনি আবারও মেয়র হবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।

বাগেরহাট জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ফরাজি বেনজির আহম্মেদ বলেন, মোংলা পোর্ট পৌরসভায় ভোটার আছেন ৩৩ হাজার ৫৪৯ জন। তার মধ্যে পুরুষ ১৬ হাজার ৬৯৪ এবং ১৪ হাজার ৮৫৫ জন নারী ভোটার। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী ১৬ জানুয়ারী ইভিএমে তাদের ভোট প্রয়োগ করবেন বলেও জানান তিনি।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *