দেড় লক্ষাধিক ক্ষুদে বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠে ৭ মার্চের ভাষণ

সারাদেশ

স্বদেশবাণী ডেস্ক:  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী মুজিববর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে খুলনায় ১ লাখ ৫০ হাজার ১৫১ জন শিশু বঙ্গবন্ধু সমাবেশ ও ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ উপস্থাপন (অনুকৃতি) করেছে।

রোববার বিকালে মহানগরীর বয়রার খুলনা সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এবং চাইল্ড ইন্টিগ্রিটি ও শিশু বঙ্গবন্ধু ফোরামের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় এ শিশু বঙ্গবন্ধু সমাবেশ এবং ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ উপস্থাপন করা হয়।

ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুর মতো একই ভঙ্গিতে ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধুর দেয়া ১৯ মিনিটের ভাষণ প্রদান করে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে জুম ওয়েবিনারের মাধ্যমে প্রধান অতিথি হিসেবে সংযুক্ত হন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

জেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ জানায়, মূল অনুষ্ঠানস্থলে মহানগরীর শ্রেষ্ঠ ১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে নির্বাচিত ১৫১ জন শিশু বঙ্গবন্ধুর (ক্ষুদে শিক্ষার্থী) কণ্ঠে এবং একই সঙ্গে সমগ্র জেলা থেকে জুম ওয়েবিনারে সংযুক্ত ১ লাখ ৫০ হাজার জন শিশু বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠে একযোগে বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চ ১৯৭১ সালে যে সময়ে ভাষণ দিয়েছিলেন ঠিক একই সময়ে জেলাব্যাপী সমস্বরে ধ্বনিত হয় বঙ্গবন্ধুর সেই কালজয়ী ভাষণ।

এ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, আজ ৭ মার্চ। যেদিন রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন। সেই ডাক থেকেই বাঙালি জাতি ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম হয়েছিল বলেই স্বাধীনতার সূর্য উদিত হয়েছিল। সেই ঐতিহাসিক ক্ষণকে লক্ষাধিক ক্ষুদে বঙ্গবন্ধু আবারও স্মরণীয় করে রাখল। এটি সারা বাংলাদেশের ভেতরে একটি ব্যতিক্রমী আয়োজন।

তিনি বলেন, ক্ষুদে শিশুরা সঠিক ইতিহাস জানুক এটাই কাম্য সবার। এখান থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে তারা একদিন বাংলাদেশের নেতৃত্ব দেবে। তারাই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলবে যেখানে কোনো দুর্নীতি, শোষণ, নিপীড়ন থাকবে না।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলমগীর কবির, নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডি এ বাবুল রানা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুজিত অধিকারী, কেএমপি কমিশনার মো. মাসুদুর রহমান ভূঁঞা, খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এসএম জাহিদ হোসেন, অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম, নগর যুবলীগের আহ্বায়ক শফিকুর রহমান পলাশ প্রমুখ।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *