কোলের শিশুকে রাস্তায় ফেলে পালালেন মা!

সারাদেশ

স্বদেশবাণী ডেস্ক: যশোরের বেনাপোলে পরকীয়ার টানে আট বছরের মেয়েকে বাড়িতে ও দেড় বছরের কোলের শিশুকে রাস্তায় রেখে পালিয়ে গেছে এক মা। তবে শিশুটিকে উদ্ধার করে তার বাবার কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। শনিবার (৩ মার্চ) বিকলে বেনাপোল পোর্ট থানার পুলিশ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে শিশুটিকে তার বাবার হতে তুলে দেয়।

এর আগে শুক্রবার (২ মার্চ) শিশুটির মা মুন্নি বেগম তাকে বেনাপোল বাজারের একটি চায়ের দোকানে সামনে দাঁড় করিয়ে রেখে পালিয়ে যান।

পুলিশ ও শিশুর প্রতিবেশীরা জানান, বাগেরহাটের পিন্টু শেখের মেয়ে মুন্নির সাথে বিয়ে হয় নড়াইলের বাসিন্দা কালু শেখের। তবে বর্তমানে তাদের বসবাস বেনাপোলের সীমান্তবর্তী সাদিপুর গ্রামে। পিন্টু শেখ পেশায় ফুটপথের শিঙ্গারা বিক্রেতা। গত ৮ বছরের সংসারে তাদের ঘরে জন্ম নেয় দুই ছেলে-মেয়ে।

তারা আরও জানান, শুক্রবার বিকালে বেনাপোল বাজারে তোফাজ্জেল হোসেন নামে এক চায়ের দোকানের সামনে মুন্নি তার দেড় বছরের শিশু আলিফ হাসানকে দাঁড় করিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। পরে শিশুটি কান্না শুরু করলে দোকানদার তার মাকে খুঁজে না পেয়ে পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধার করে ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করলে তার বাবা থানায় এসে শিশুটিকে নিয়ে যায়।

প্রতিবেশী রাজ মোহন জানান, শিশুকে লালন-পালন করতে না পারলে পরিচিত কারোর মাধ্যমে বাবার কাছে দিয়ে দিতে পারতো। কিন্তু রাস্তায় ছেড়ে যাওয়া উচিৎ হয়নি। এতে বিপদ ঘটতে পারতো। একজন মায়ের কাছ থেকে এমন আচারণ অপ্রত্যাশিত।

স্ত্রী পরকীয়ায় আসক্ত ছিল উল্লেখ করে শিশুর পিতা কালু মিয়া বলেন, সে আমার সংসার করবে না বলে পূর্বে কয়েকবার জানায়। বিষয়টি ঠিক হয়ে যাবে মনে করে আমি প্রতিউত্তর করিনি, বরং তাকে বুঝিয়েছি। শুক্রবার আমার অজান্তে আমার ৮ বছরের মেয়েকে বাড়িতে রেখে দেড় বছরের বাচ্চাটিকে নিয়ে কোনও এক সময় বাড়ি থেকে বের হয়।

তিনি আরও জানান, রাতে তার স্ত্রী তাকে ফোন করে বলে যে, ছেলে আলিফকে বেনাপোল বাজারে এক চায়ের দোকানের পাশে রেখে গেছে। পারলে খুঁজে নিতে। কিন্তু নির্দিষ্ট জায়গা না বলায় বাজারে এসে তাকে পাননি তিনি। শেষে পরিচিত জনদের মাধ্যমে ফেসবুকে ছবির কথা শুনে পুলিশের কাছে গিয়ে ছেলেকে ফিরিয়ে আনেন তিনি।

বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাসুম বিল্লাহ জানান, শিশুটির মা পরিকল্পিতভাবে তাকে ফেলে পালিয়ে যায়। শিশুটির বাবা থানায় এসে উপযুক্ত প্রমাণ দিয়ে নিয়ে গেছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *