আম-লিচুর ফলন অর্ধেক, ক্ষতির মুখে চাষী

কৃষি

স্বদেশবাণী ডেস্ক: অনাবৃষ্টি ও তাপ-প্রবাহে আম-লিচুর ফলন অর্ধেকে নেমে এসেছে। এতে বাজারে ঘাটতির আশঙ্কা করছেন কৃষি অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর আলম খান। আরও জানান, বাম্পার ফলন হলেও তাপ-প্রবাহে জমিতেই পুড়ে গেছে প্রায় ১ শতাংশ ধান।

খরার কবলে পড়ে দেশ। আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস, বছর জুড়েই এবার কম বৃষ্টিপাত হবে।

দীর্ঘ খরায় ক্ষতি হয় মৌসুমী ফল-ফসলের। ঝরে যায় আমের মুকুল, ঝরে গুটি আমও। এরকম আবহাওয়ায় প্রায় প্রতি গাছের আমেই এবার পোকা ধরবে। কৃষি অর্থনীতিবিদদের হিসাবে গতবারের চেয়ে এবার প্রায় ৪০ শতাংশ ফলন কম হবে।

শুধু আম নয়, এবছর লিচুর ফলনও কমবে প্রায় ৭০ শতাংশ।

কৃষি অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ফলন কম হওয়ার প্রভাব বাজারেও পড়বে।

কৃষি অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গির আলম বলেন, মুকুল অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং বাড়ন্ত অবস্থায় লিচু-আম ঝড়ে পড়েছে। তাতে করে অনুমান করা হচ্ছে যে আম-লিচুর উৎপাদন প্রায় অর্ধেক কমে যাবে। ফলে আমাদের কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হবে, তাদের আয় কমে যাবে। অপরদিকে বাজারে ফলের দাম বেড়ে যাবে।

কিছু এলাকায় তাপদাহের কারণে ক্ষেতেই নষ্ট হয়েছে ধান।

চাষীরা বিশেষ করে ফল চাষীরা এবার ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে। তাদেরকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার আহ্বান এই কৃষি অর্থনীতিবিদের।

অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গির আলম বলেন, ফসলের ক্ষেত্রে অতিসম্প্রতি যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন এই হিটশকের কারণে। তাদের মতোই প্রণোদনার আওতায় আম ও লিচু চাষী যারা রয়েছেন, তাদেরকেও নিয়ে আসা দরকার। তাদেরকে নগদ সহায়তা দেয়া দরকার।

ক্ষতিপূরণ না পেলে চাষীদের ঘুরে দাঁড়ানো কঠিন হবে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *